চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮

‘ব্ল্যাকআউট’ কর্মসূচিতে একমিনিট অন্ধকারে বাংলাদেশ

প্রকাশ: ২০১৮-০৩-২৫ ২১:৫৩:১৭ || আপডেট: ২০১৮-০৩-২৫ ২১:৫৩:১৭

ভয়াল কালরাত স্মরণে রাত ৯টা থেকে সারাদেশে ১ মিনিটের ব্ল্যাকআউট কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

রবিবার (২৫ মার্চ) রাত নয়টায় নিভে যায় সব ঘরের আলো। স্মরণ করা হলো ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতের শহীদদের।

সেই শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই রবিবার (২৫ মার্চ) রাত নয়টায় বিদ্যুতের আলো নিভিয়ে দেওয়া হয়। রাত ৯টা থেকে ৯টা ১মিনিট পর্যন্ত একমিনিটের জন্য সব ঘরের আলো নিভিয়ে দিয়ে এই রাত স্মরণ করার ঘোষণা দিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। তবে ওই সময় বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করা হয়নি। এছাড়া জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ও কেপিআই এই আয়োজনের বাইরে ছিল।

এর আগে কালরাতে নিহতদের স্মরণে সারাদেশে এক মিনিট সব ধরনের বাতি বন্ধ রাখার কর্মসূচি নিয়েছিল সরকার। গত ১১ মার্চ সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এদিকে গণহত্যা দিবসে এক মিনিট বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখাসহ সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে চিঠি পাঠিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

চিঠিতে জানানো হয়েছিল, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জননিরাপত্তা বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ, তথ্য মন্ত্রণালয়, গণযোগাযোগ অধিদপ্তর এবং সব জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) মাধ্যমে গণহত্যা দিবসে এক মিনিট ব্ল্যাক আউট কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে।

জাতীয় সংসদের স্বীকৃতির পর একাত্তরের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বর্বর হত্যাযজ্ঞের দিনটিকে গতবছর ‘গণহত্যা দিবস’ হিসেবে ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

বাঙালির মুক্তির আন্দোলন নস্যাৎ করতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে এ দেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামের সেই অভিযানে কালরাতের প্রথম প্রহরে ঢাকায় চালানো হয় গণহত্যা।