চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮

২৮১ যাত্রী নিয়ে বঙ্গোপসাগরে ভাসছে চট্টগ্রাম-সন্দ্বীপ-হাতিয়া রুটের ‘এমভি মনিরুল’

প্রকাশ: ২০১৮-০৩-১৯ ২২:৪৬:৫০ || আপডেট: ২০১৮-০৩-১৯ ২২:৪৭:৩৩

চট্টগ্রাম-সন্দ্বীপ-হাতিয়া রুটে চলাচলকারী বিআইডবিস্নউটিসির জাহাজ ‘এমভি মনিরল হক’ ২৮১ জন যাত্রী নিয়ে বঙ্গোপসাগরে আটকা পড়েছে। সোমবার (১৯ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাত্রীসহ ওই জাহাজটি বঙ্গোপসাগরে আটকা পড়ে।

সন্ধ্যা সাতটা পর থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত জাহাজের যাত্রীদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা যায়নি। কোনো জাহাজ উদ্ধারে এখনো ঘটনাস্থলে যায়নি বলে নিশ্চিত করেছে বিআইডাব্লিউটিসি সূত্র।

এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে ওই জাহাজে থাকা বিআইডাব্লিউটিসির টিকেট চেকার মুশফিক একুশে পত্রিকাকে জানান, চট্টগ্রাম সদরঘাট থেকে জাহাজটি হাতিয়ার উদ্দেশে রওয়ানা দেয়। সন্ধ্যায় ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাত্রীসহ বঙ্গোপসাগরে আটকা পড়ে। এখনো সাগরে ভাসছে জাহাজটি। কোনো জাহাজ উদ্ধারে এখনো ঘটনাস্থলে আসেনি।

হাতিয়া বিআইডাব্লিউটিসি নৌঘাটের ইজারাদার আলমগীর বলেন, ‘এমভি মনিরুল হক সকাল নয়টা চট্টগ্রামের সদরঘাট থেকে ২৮১ জন যাত্রী নিয়ে হাতিয়ার উদ্দেশে রওনা দেয়ার পর যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বঙ্গোপসাগরে আটকে যায়। এখন ওই জাহাজের কারো সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা যাচ্ছেনা। যতটুকু জেনেছি ঠেঙ্গার চরের কাছকাছি কোথাও জাহাজটি সাগরে ভাসছে।’

চট্টগ্রাম সদরঘাট কুলি সর্দার কালাম জানান, সকালে সদরঘাট থেকে ‘এমভি মনিরল হক’ ২৮১ জন যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যায়। বিকেলের পর থেকে ওই জাহাজের কারো সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা যাচ্ছেনা।

এ বিষয়ে কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন এম ওয়াসিম মকসুদ একুশে পত্রিকাকে বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের জানা নেই। আপনার কাছ থেকেই জানলাম। খবর নিচ্ছি।’

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৩ সালে ২০০ যাত্রী নিয়ে সন্দ্বীপ ঘাটের অদূরে সাগরে আটকা পড়েছিলো বিআইডবিস্নউটিসির এমভি মনিরুল হক।