চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

রাউজানে স্বেচ্ছাশ্রমে চলছে সড়কের সংস্কার কাজ

প্রকাশ: ২০১৮-০২-২১ ২১:০৯:০৫ || আপডেট: ২০১৮-০২-২১ ২১:০৯:০৫

মো. হাবিবুর রহমান
রাউজান থেকে

চট্টগ্রামের রাউজানের বিনাজুরি ইউনিয়নে স্থানীয় যুবকদের উদ্যোগে সেচ্ছায় ১ হাজার ৫’শ ফুট সড়কের সংস্কার কাজ করছেন শতাধিক যুবক। স্থানীয়দের কাছ থেকে চাঁদা তুলে স্বেচ্ছায় শ্রম দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অবহেলায় পড়ে থাকা লেলাংগারা পাড়া সড়ক সংস্কার করছেন তারা। বিনাজুরি ইউনিয়নের লেলাংগারা, জামুয়া আইন, পূর্ব লেলাংগারা ও পশ্চিম লেলাংগারা এলাকাসহ চার গ্রামের লোকজনের চলাচলের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম এ সড়কটি।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাউজান কলেজ, কাগতিয়া মাদ্রাসা, লেলাংগারা পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়, পশ্চিম লেলাংগারা জামুয়া আইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সাজিনা চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থীও চলাচলের অন্যতম মাধ্যম এ সড়ক। সড়কটি উঁচু না হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে বন্যার সময় হাঁটু পানিতে তলিয়ে যায়। গত বর্ষা মৌসুমে বন্যায় ভাঙন আরো তীব্র হয়। ফলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীকে। পরে স্থানীয় যুবকরা উদ্যোগ নিয়ে রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীকে জানালে তিনি এক লক্ষ টাকা প্রদান করেন। এলাকার বৃত্তবানসহ সকল শ্রেণী পেশার লোকজনের কাছ থেকে চাঁদা তুলে সংস্কার কাজ শুরু করে। এ সড়কটির সংস্কার কাজে প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয় হবে বলে ধারণা করছেন উদ্যোক্তারা। যদি দিনমজুর দিয়ে কাজ করা হতো তাহলে ব্যয় দ্বিগুন হতো বলেও মনে করছেন তারা। এ সড়কটি সংস্কার কাজের জন্য যুকরা কার্যকরী পরিষদ, বাড়ি ভিত্তিক প্রতিনিধি ও তদারকি পরিষদসহ ৩টি পরিষদ গঠন করে।

সরেজমিনে গিয়ে সড়ক সংস্কার কাজে অংশগ্রহণকারী মো. আরমান, শফিউল আজম রিপন, আনিসুল ইসলাম রনি, মারুফ বিল্লাহ, তারেক মাহমুদ, মহি উদ্দিন ইসলাম ও ফয়সাল মাহমুদের সাথে এ প্রতিবেদকের কথা হয়। তারা বলেন, লেলাংগারা পাড়া সড়কটি নিচু হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে সড়কটি পানির নিচে তলিয়ে যায়। প্রায় ৪/৫যুগ ধরে এ সড়কে মাটি ভরাট করা হয়নি। জনপ্রতিনিধিরা কোন ধরনের ব্যবস্থা না নেয়ায় আমরা এ সড়কের সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছি। আর্থিক, শারীরিক ও মানসিক শ্রম দিয়ে এলাকার যুবকসহ সকল শ্রেণী পেশার লোকজন সহযোগিতা করছেন। ১ হাজার ৫’শ ফুট দৈর্ঘ্য ও প্রায় ৩ ফুট উচ্চতা (মাটি ভরাট)’র সংস্কার কাজ চলছে। গত জানুয়ারি মাসে কাজ শুরু করেছি। আগামী মার্চ মাসে সংস্কার শেষ হবে বলে আশাপ্রকাশ করেন তারা।

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুকুমার বড়ুয়া বলেন, ওই সড়কটি টেন্ডার হয়েছে। এটি দুই ফুট উচু করতে হবে। সড়কটি উচু করার জন্য স্থানীয়রা আর্থিকভাবে সহযোগিতা ও স্বেচ্ছায় কাজ করছে। উন্নয়ন করা তো ভালো উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সব উন্নয়ন কি শুধু সরকার করবে? দেশের মানুষও কিছু করুক। সরকারের পাশাপাশি দেশের মানুষ এগিয়ে আসলে উন্নয়ন হবে, জনগণ লাভবান হবে।