চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

স্ত্রী-সন্তানের বকাবকি, ফাঁস দিয়ে ফটিকছড়িতে প্রবাসীর অাত্মহত্যা

প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৪ ২৩:১৬:০১ || আপডেট: ২০১৮-০২-১৫ ১৪:২৪:৫৭

মীর মাহফুজ অানাম
সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক

মেয়েকে মোবাইলে গেমস খেলতে বার বার বারণ করা সত্তেও হাত তুলে শাসন করায় ফটিকছড়িতে স্ত্রী অার মেয়ের বকুনিতে অপমানে অাত্মহত্যা করেছে এক প্রবাসী। উপজেলা সদরের বিবিহাটস্থ বাইতুল হিকমাহ মাদ্রাসা সংলগ্ন এজহার ম্যানশনে নিজের ভাড়া বাসায় মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

অাত্মহুতি দেয়া পিতার নাম মো.ইদ্রিস (৪৫)। তিনি উপজেলার নারায়নহাট ইউনিয়নের পূর্ব চানপুর বলি পাড়ার সুলতান সওদাগর বাড়ির মৃত ইছহাকের পুত্র।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শারিরীক অসুস্থতার কারণে ইদ্রিস গত ছয় মাস পূর্বে ছুঁটিতে প্রবাস থেকে দেশে অাসেন। অাগামী ২২ ফেব্রুয়ারী তার প্রবাসে ফিরে যাওয়ান কথা। স্ত্রী রাহেনা বেগম (৩৯) উপজেলার দৌলতপুর এবিসি উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতার কারণে পূর্ব থেকে ফটিকছড়ি পৌর সদরের ঐ ভাড়া বাসায় পরিবার নিয়ে থাকতেন। তাদের সংসারে ২ মেয়ের প্রথম জন আছমা অষ্টম শ্রেণীতে পড়ে। ঘটনার রাতে অাছমা মোবাইলে ‘গেইমস’ খেলছিল। তার পিতা ইদ্রিস মেয়েকে মোবাইলে ‘গেইম’ না খেলার জন্য বার বার বারণ করার পরও অাছমা কথা না শুনে গেইম খেলতে থাকলে এক পর্যায়ে রেগে মেয়েকে মারধর করে বাবা। মেয়ের উপর হাত উঠালে স্ত্রী’র সাথেও ঝগড়া বেঁধে যায় ইদ্রিসের। এ সময় স্ত্রী-কন্যা মিলে তাকে বকাবকি করলে অপমান সইতে না পেরে রাত আনুমানিক সাড়ে দশটা থেকে বার’টার যেকোন সময় বাসার কক্ষের দরজা বন্ধ করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। ওই রাতে নিহতের পরিবার ও প্রতেবেশীরা উদ্ধার করে নাজিরহাটস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে ফটিকছড়ি থানা পুলিশ হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে ফটিকছড়ি থানার পুলিশ পরিদর্শক (এস.আই) দেলোয়ার বলেন, ‘প্রবাসী ইদ্রিস মেয়ের সাথে অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে নিশ্চিত হয়েছি। এ
ঘটনায় কেউ কোন অভিযোগ দেয়নি।’