চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮

বাস্তব জীবনের আসল সংগ্রাম এখন থেকেই শুরু হল

প্রকাশ: ২০১৮-০২-১১ ১৯:১৭:৪৫ || আপডেট: ২০১৮-০২-১১ ১৯:১৭:৪৫

সিভাসু’র সমাবর্তন অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের রাষ্ট্রপতি

ইমরান এমি.
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাস্তব জীবনের আসল সংগ্রাম এখন থেকেই শুরু হয়েছে জানিয়ে রাষ্ট্রপতিমো. আবদুল হামিদ বলেন এই সনদ সেই সংগ্রামে অবতীর্ণ হবার স্বীকৃতিপত্র। এসনদেও মাধ্যমে জাতির কাছে মেধাবী সন্তান হিসাবে তোমরা স্বীকৃতি পাবে। তাই এ সনদের সম্মান ধরে রাখার দায়িত্ব নিজেদের। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উদ্যেশে দেওয়া বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো.আবদুল হামিদ এ কথা বলেন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিভাসু’র উপাচার্য ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ।

জলবায়ূ পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাবের বিষয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, জলবায়ূ পরিবর্তনের বিরূপ প্রতিক্রিয়ার নেতিবাচক প্রভাব আমাদের কৃষিতে পড়তে শুরু করেছে। অপরিকল্পিতভাবে রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার মৎস্য ও প্রাণি সম্পদের উপরও বিরূপ প্রভাব ফেলছে। কৃষি ও প্রাণি সম্পদ খাতের অব্যাহত অগ্রগতি নিশ্চিত করতে হলে জলবায়ূ পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় গবেষক ও বিজ্ঞানীদের নতুন নতুন জাত ও পদ্ধতি আবিস্কারে মনযোগী হতে হবে। বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে এই বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। ’
বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশের জন্য ছাত্র-শিক্ষকের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের উপর জোর দিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেছেন, শিক্ষকদের হতে হবে স্নেহপ্রবণ ও অভিভাবকতুল্য। বাংলাদেশ আজ সম্ভাবনার এক উজ্জল সময় অতিক্রম করছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে তরুণদের সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানব সম্পদে রূপান্তরিত করার গুরুদায়িত্ব পালন করতে হবে। সমাবর্তনে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান। বক্তা ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ইমিরেটাস ড.এ কে আজাদ চৌধুরী।

জানা যায়, ১৯৯৬ সালের জানুয়ারি মাসে ৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু হয় কলেজটির। তখন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ছিল এই কলেজ। ২০০৬ সালে এই কলেজকে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রূপান্তর করা হয। পরবর্তীতে এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সাইন্সেস ইউনিভার্সিটি (সিভাসু) প্রতিষ্ঠা করে। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভেটেরিনারি মেডিসিন, ফুড সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এবং মৎস্য বিজ্ঞান নামে তিনটি অনুষদ দিয়ে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। স্নাতক সম্পন্ন করা ৮৪৪ জন, স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করা ২১৬ জন এবং ২ জন পিএইচডি সম্পন্ন করা শিক্ষার্থীরা রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কাছ থেকে সনদ গ্রহন করেন।