চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

হেফাজতের আমিরের সাথে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক

প্রকাশ: ২০১৮-০২-০২ ১৯:৪৩:১৯ || আপডেট: ২০১৮-০২-০২ ২১:০৩:১৪

ইসলাম শান্তির ধর্ম। সত্যিকার অর্থে যারা বুকে ইসলাম ধারণ করে তারা কখনো জঙ্গি হতে পারে না জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, সরকার কওমি মাদ্রাসার শিক্ষাকে স্বীকৃতি দিয়ে সনদের ব্যবস্থা করেছে। যাতে সবাই দক্ষ জনসম্পদে পরিণত হবে পারে।

২ ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার) দুপুর ২টায় চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার নানুপুর ওবাইদিয়া মাদ্রাসার বার্ষিক মাহফিলে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রসঙ্গত, মন্ত্রী হেলিকপ্টারযোগে দুপুর ১ টার দিকে নানুপুর লায়লা করিব কলেজ মাঠে নেমে মাদ্রাসার মাহফিলে যোগ দেন। জুমার নামাজ শেষে বক্তব্য রেখে সড়ক পথে হাটহাজারী বড় মাদ্রাসায় হেফাজতের আমির আহমেদ শফির সাথে রুদ্ধদার বৈঠকে মিলিত হন।

বার্ষিক মাহফিলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ ইসলাম সমর্থন করে না। ইসলামে মানুষ হত্যাকারীদের কোনো স্থান নেই। বর্তমান বিশ্বে ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য একটি মহল উঠে পড়ে লেগেছে। আমাদের সবার ঈমানকে মজবুত করতে হবে। সকল যড়যন্ত্র থেকে সাবধান থাকতে হবে।

এদিকে, শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় তিনি হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার হেফাজত আমিরের কার্যালয়ে আল্লামা শাহ আহমদ শফী’র সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

সেখানে ১ ঘণ্টা অবস্থানের পর মন্ত্রী ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে চট্টগ্রাম চেম্বার ফেস্টিভ্যাল-২০১৮ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সড়কপথে নগরীতে রওনা দেন।

সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘হুজুর অসুস্থ ছিলেন শুনে দেখতে এসেছি। হুজুর কাছ থেকে দোয়া নেয়ার ইচ্ছে ছিল। সে উদ্দেশ্যে উনার সাথে দেখা করতে এসেছি। তার কাছে দেশের জন্য দোয়া চেয়েছি। তিনি দেশের জন্য দোয়া করেছেন। তিনি সবার জন্য মন খুলে, প্রাণ খুলে দোয়া করেছেন।’

খালেদা জিয়ার বিচারের রায়কে কেন্দ্র করে হেফাজতকে কোনো বার্তা দিতে আসছেন কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্ন উড়িয়ে দিয়ে মন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার রায়কে ঘিরে কিছুই হবে না। আইনমত তার বিচার হচ্ছে। দেশের মানুষ অনেক শান্তিকামী, দেশের মানুষ ভাঙচুর ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পছন্দ করে না। কাজেই আমরা মনে করি খালেদা জিয়ার বিচারের রায়কে কেন্দ্র করে কোনো কিছুই হবে না।

সামনের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে হেফাজতের সাথে রাজনৈতিক কোনো আলাপ হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, রাজনৈতিক কোনো আলাপ নয়, শুধু হুজুরের নিকট থেকে দোয়া নিতে এসেছি।

তিনি বিকেল সাড়ে ৪টায় হাটহাজারী মাদ্রাসায় পৌঁছান। এসময় মাদ্রাসার পক্ষ থেকে মুফতি জসীমুদ্দীন ও মাওলানা আনাস মাদানী তাকে অভ্যর্থনা জানান।

মন্ত্রী মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে বেনায়ে ফুজলায়ে দারুল ঊলুম হাটহাজারী নামে ছাত্রদের জন্য একটি আবাসিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এসময় সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের এমপি আবু রেজা মো. নেজাম উদ্দীন নদভী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মনিরুজ্জামান মনি, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী, র‌্যাব-৭ এর সিও কর্নেল মিফতা ছাড়াও হেফাজত আমীর ও পুত্র হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষাপরিচালক মাওলানা আনাস মাদানী, মাওলানা মীর ইদরীস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মন্ত্রী ঢাকা থেকে হেলিকপ্টার যোগে ফটিকছড়ি উপজেলার নানুপুরস্থ জামেয়া ইসলামিয়া ওবায়দিয়া মাদ্রাসায় যান।

সেখানে জুমার নামাজ আদায় ও মধ্যাহ্ন ভোজে যোগ দেন।