চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮

চট্টগ্রামে বাড়ছে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিক মৃত্যুর ঘটনা

প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৩ ২৩:৫৯:৫৫ || আপডেট: ২০১৮-০১-২৪ ১১:০৯:৪৩

এস আনোয়ার
সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় শ্রমিক মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে । বিশেষ করে কাজ করার সময় ভবনের ছাদ থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনা আশংকাজনক হারে বেড়েছে। অতিরিক্ত পরিশ্রম ও কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের কাজের উপযোগী পরিবেশ না থাকায় এসব দুর্ঘটনা ঘটছে বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত এক মাসে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ভবন থেকে পড়ে প্রায় ২০ জন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এরমধ্যে গত সোমবার (২২ জানুয়ারি) একইদিনে হাটহাজারী উপজেলায় কাচারী রোডে নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করার সময় তৈয়মুর রহমান (৫০) ও লোহাগড়া উপজেলায় পদুয়া এলাকায় আক্কাস (১৮) নামের দুই শ্রমিক নিহন হন।

এর আগেরদিন রবিবার নগরীর বায়েজিদ থানাধীন অক্সিজেন বেপারি পাড়া এলাকায় মো. আবদুর রহমান (৪৫) ও টাইগারপাসের বাটালি হিল এলাকায় চন্দন পাল (৩০) নামের দুই শ্রমিক ভবন থেকে পড়ে গিয়ে নিহত হয়েছেন। এছাড়াও গত এক মাসে প্রায় ১২ জন শ্রমিক কর্মস্থলে আহত হয়ে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছেন।

শ্রমজীবী মানুষদের কর্মপরিবেশ ও অধিকার নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংগঠন বাংলাদেশ অক্যুপেশনাল সেইফটি হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ফাউন্ডেশন (ওশি) তথ্য অনুযায়ী, প্রতি মাসে পেশাগত দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছেন ৭৬ শ্রমিক এবং আহত হচ্ছেন ৭১ শ্রমিক। গত বছর ২০১৭ সালের প্রথম ৩ মাসে পেশাগত দুর্ঘটনায় শিকার হয়ে ২৯৪ শ্রমিক মারা গেছেন এবং আহত হয়েছেন ১০১ শ্রমিক। এছাড়াও ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে পেশাগত দুর্ঘটনায় শিকার হন ৮ হাজার ৬৫৩ জন। এরমধ্যে নিহত হয়েছেন ৪ হাজার ৬১৬ জন। আহত শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার ৩৭৩ জন।

অপরদিকে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস) এর এক প্রতিবেদনে জানা যায়, দেশে বছরে কর্মক্ষেত্রে গড়ে মারা যায় ৬৬৭ শ্রমিক। গত ৮ বছরে কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় শিকার হয়ে মারা গেছেন ৫ হাজার ৩৩৯ জন শ্রমিক। এ সময় আহত হয়েছেন ১০ হাজার ৮৩০ শ্রমিক।

বিলস এর নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহম্মদ বলেন, কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনা এবং শ্রমিক মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু আইন অনুয়ায়ী শ্রমিকদের জন্যে কাজের পরিবেশ, অবকাঠামো নিশ্চিত হচ্ছে না।

এদিকে ২০০৬ সালে শ্রম আইনের পঞ্চম তফসিলে নিহত শ্রমিকদের পরিবারের জন্য ১ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়। শ্রমিক সংগঠনগুলো এর পরিমাণ বাড়ানোর জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসলেও এখনো তা উপেক্ষিত। প্রাতিষ্ঠানিক খাতে ক্ষতিপূরণ পেলেও অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকরা ক্ষতিপূরণ পায় না।

জানতে চাইলে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত মহা পরিদর্শক মো. আবদুল হাই খান সিটিজি টাইমসকে বলেন, অনেক ক্ষেত্রে শ্রমিকদের ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করতে বাধ্য করা হয়, যার কারণে প্রাণ যায় শ্রমিকদের।’

‘তবে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকরা কর্মস্থলে দুর্ঘটনায় মারা গেলে তাদের পরিবার অনেক সময় ক্ষতিপূরণ পায় না। আমরা এ ধরণের খবর পেলে পরিদর্শক পাঠিয়ে টাকা আদায় নিশ্চিত করি। এছাড়াও আবেদনের মাধ্যমে নিহত শ্রমিকের পরিবারকে কেন্দ্রীয় শ্রমিক কল্যাণ ফান্ড থেকে টাকা পেতে সহযোগিতা করি।’ যোগ করেন অতিরিক্ত মহা পরিদর্শক মো. আবদুল হাই।