চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮

মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে মানববন্ধনে ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিকদের ১০ দিনের আল্টিমেটাম

প্রকাশ: ২০১৮-০১-২২ ২২:৪৩:৫১ || আপডেট: ২০১৮-০১-২২ ২২:৪৩:৫১

ভিক্ষা নয়, দয়া নয় বাপ-দাদার জায়গা জমিনের ক্ষতি পূরর্ণের দাবী করছি, অন্যতায় কাজ বন্ধ করা হবে

মহেশখালী প্রতিনিধি

মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে মানববন্ধনে ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিকরা ১০ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে। তারা বলেন ভিক্ষা নয়, দয়া নয় বাপ-দাদার জায়গা জমিনের ক্ষতি পূরর্ণের দাবী করছি, অন্যতায় কাজ বন্ধ করা হবে। মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী থেকে ২য় কয়লা বিদ্যুতের জন্য অধিগ্রহণ করা ১২ শত এককর জমি কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষ অধিগ্রহণ করার পর জমির মালিকদের ক্ষতিপূরর্ণের টাকা না দিয়ে কয়েক মাস ধরে ঐ জমিনের চারদিকে বাঁধ নিমার্ণ করে যাচ্ছে। এমন কি উত্তরাংশে অর্থাৎ বার শত একর জমিনের আওতাধীন থাকায় তিনটি সুইচ গেইটের মুখে মাটি ফেলার কারনে বাহির থেকে পানি আশা যাওয়া করতে না পারায় ঐ অধিহগ্রহণকৃত জমিসহ আশে পাশে থাকা আরোও বহু জমিনে লবণ চাষ করতে ব্যহত হতে হচ্ছে। এছাড়া ১৫০ একর জমিনে হাল-চাষ হচ্ছেনা শুষ্ক মৌসুমে। এমন কি আগামী বর্ষা শুরু হওয়া সাথে সাথে বৃষ্টির পানি নিস্কাশন হতে না পারলে পুরো মাতারবাড়ী পানিতে তলিয়ে যাবে। আমাদের দাবী অধিকগ্রহন করা জমিনের মালিকদের সম্পূর্ণ টাকা দিয়ে ঐ এলাকায় কাজ শুরু করতে হবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে।অন্যথায় এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে আমাদের সহায় সম্পত্তি রক্ষায় আমরা প্রতিরোধ করতে যা যা প্রয়োজন তা করতে বাধ্য হব। এর -ই ধারাবহিকতায় আমাদের আন্দোলন চলমান হিসেবে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের চত্ত্বর এলাকায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করার পরিকল্পনাও আমাদের রয়েছে। এমন কি ঢাকা জাতীয় প্রেসক্লাবে পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে মানবন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করে দাবী আদায় করে নেব। গতকাল সোমবার বিকেল ৪ টার সময় মাতারবাড়ী পূর্নবাসন সংগ্রাম কমিটির সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য বশির আহমদের সভাপতিত্বে ও ছাত্রনেতা জকরিয়ার পরিচালনায় অনুষ্টিত মানবন্ধনে মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী ইউনিয়নের সিএনজি স্টেশন এলাকার প্রধান সড়কে মাতারবাড়ী পূর্ণবাসন বাস্তবায় সংগ্রাম পরিষদের আয়োজনে মানবন্ধনে উপস্থিত বক্তরা এসব কথা বলেন। এ সময় বক্তব্য রাখেন, উক্ত পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ নেতা কাউছার সিকদার, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আব্দু রহিম বি.এ, সাবেক ছাত্র নেতা কামাল উদ্দিন, মাতারবাড়ী ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ কাশেম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নুরুল কাদের সিকদার। বক্তব্যের শেষে বক্তরা ৭ দফা দাবী সম্বলিত কপি উপস্থিত সাংবাদিক ও স্থানিয় এলাকাবাসির মাঝে বিতরণ করেন। দাবী গুলো হচ্ছে, ১৪১৪ ও ১২০০ শত একর কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের জন্য অধিগ্রহণকৃত ভূমির ক্ষতিপূরর্ণের ও সম্পূর্ণ টাকা প্রধান না করা পর্যন্ত মানবিক দৃর্ষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত ভূমি মালিকদেরকে চাষাবাদ করার সুযোগ দেয়া, ঘনবসতি মাতারবাড়ী বাসিকে জলবদ্ধতা থেকে মুক্তি দেওয়ার লক্ষে পাণি চলাচলের ব্যবস্থা নিশ্চিত করণ, ৯০% ক্ষতি পূরর্ণের টাকা পরিশোধ না করা পর্যন্ত জমি মালিকদের ব্যবহারের সুযোগ দেয়া, কক্সবাজার জেলা ভূমি অধিগ্রহণকৃত কার্যালয়ে হয়রানি দূর্ণীতি বন্ধ করা, প্রকল্পের কাজে বহিরাগত শ্রমিকদের নিয়োগ বন্ধ করে মাতারবাড়ী কর্মহীন শ্রমিকদেরকে নিয়োগ দেয়া, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার লোকজনের মাঝে কৃষি ঋণ, মৎস্য ঋণসহ বিভিন্ন ঋণ মওকুফ করা হোক। ভিক্ষা নয়, দয়া নয় বাপ দাদার জমিনের ক্ষতিপূরর্ণ চাই এটাই ছিল শ্লোগান ।