চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮

বন্ধ চমেকের সিটি স্ক্যান সেবা, নষ্ট মেশিনে কষ্টে রোগীরা

প্রকাশ: ২০১৮-০১-১৯ ১৭:৪৯:২৪ || আপডেট: ২০১৮-০১-১৯ ১৮:২২:৩২

সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক

তিন বছর ধরে অচল চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সিটি স্ক্যান মেশিন। এতে ভোগান্তিতে পড়ছে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা। বাধ্য হয়ে তাদের যেতে হচ্ছে বাইরের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। আর গুনতে হচ্ছে বাড়তি টাকা।

জানা যায়, হাসপাতালে সিটি স্ক্যানের জন্য নেয়া হয় স্বল্প টাকা। কিন্ত বাইরে গেলে খরচ বেড়ে যায় হাসপাতালের চেয়ে তিন-চার গুন বেশি। সামর্থ্যবানরা সক্ষম হলেও বিপাকে পড়েন অসচ্ছলরা। এতে বেকায়দায় পড়তে হয় তাদের স্বজনদের। আবার অনেকেই টাকার অভাবে চিকিৎসা ছাড়া পড়ে থাকেন হাসপাতালের বেডে।

মঙ্গলবার সকালে সাতকানিয়ার বাসিন্দা হরিপদ ধরকে হাসপাতালে ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। তিনি স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছিলেন। ওয়ার্ডে আনার পর চিকিৎসক তাকে সিটি স্ক্যান করাতে বলে।

হরিপদের এক স্বজন বলেন, ‘স্ট্রোকের পর হরিপদের হাঁটাচলা বন্ধ হয়ে যায়। চিকিৎসক পরীক্ষার করাতে বললেও হাসপাতালে সিটি স্ক্যান সেবা নেই। তাই বাধ্য হয়ে বাহির থেকে করাতে হয়েছে।’

‘আমার মেয়ের মাথায় ও বুকে সমস্যা। কয়েকটি এক্সরে হাসপাতালে করাতে পারলেও সিটি স্ক্যান করাতে হয়েছে বাহির থেকে।’ বলেন সুখী আকতার নামের আরেক নারী।

এখনো চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রায় তিন কোটি মানুষের চিকিৎসার শেষ আশ্রয় এ হাসপাতালে। প্রতিদিন হাজার হাজার রোগী এখানকার আউটডোর-ইনডোর থেকে সেবা নেন।

হাসপাতালে প্রতিদিন ১৫ থেকে ২০ টি সিটি স্ক্যান করাতে হয় রোগীদের। কিন্তুসেটি এখন বন্ধ রয়েছে। তিন বছর ধরে মেশিন নষ্টের বিষয়টি স্বীকার করে হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের প্রধান ডাক্তার সুভাষ মজুমদার সিটিজি টাইমসেক বলেন, ‘আমরা অনেকবার কর্তৃপক্ষকে বলেছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।’

অন্যদেিক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জালাল উদ্দিন বলেন, মেডিকেলের রেডিওথেরাপি ও সিটি স্ক্যান মেশিন দীর্ঘদিন নষ্ট। সম্প্রতি স্বাস্থ্যমন্ত্রী চট্টগ্রাম আসলে তিনি দ্রুত রেডিওথেরাপি মেশিন দেয়ার জন্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।’

‘আমরা সিটি স্ক্যান মেশিনের ব্যাপারে মন্ত্রীকে সরাসরি জানিয়েছে। এছাড়া মন্ত্রণালয়েও চাহিদাপত্র দিয়েছি। আশাকরি এই বছর মেশিনটা হাসপাতালে আসবে।’ যোগ করেন পরিচালক জালাল