চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২২ আগস্ট ২০১৮

চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের অপসারণ দাবী

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৯ ২২:১০:০৮ || আপডেট: ২০১৮-০১-১০ ১১:৩৭:৪২

অদক্ষতা ও ব্যর্থতার অভিযোগ তুলে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী ফয়জুল্লাহর অপসারন দাবী করেছে রাঙ্গুনিয়া ও রাউজান মানবাধিকার কমিশন এবং সম্মিলিত নাগরিক সমাজ। মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবী জানানো হয়।

রাঙ্গুনিয়ায় স্থাপিত পানি শোধনাগার থেকে চট্টগ্রাম নগরীকে পানি সরবরাহ লাইন স্থাপনে সড়ক কেটে সংস্কার না করায় এবং ২ বছর ধরে হাজার হাজার মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি জন্য ওয়াসাকে দায়ী করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

এতে জানানো হয়, পানির লাইন স্থাপনে চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটারের বেশি কাপ্তাই সড়ক কেটে ক্ষতবিক্ষত করা হলেও প্রায় তিন বছর ধরে এই সড়কটি পুঃন সংস্কার করছে না ওয়াসা কর্তৃপক্ষ। মাসের পর মাস কাপ্তাই সড়ক ক্ষত বিক্ষত থাকায় এই সড়কে প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা। বিকল হচ্ছে শত শত যানবাহন। প্রতিদিন চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। ওয়াসার চরম দায়িত্বহীনতা ও গাফিলতির কারনে কাপ্তাই সড়কে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় ইতিপূর্বে প্রাণ হারিয়েছে ৩ জন। আহত হয়েছে কয়েকশ মানুষ।

এছাড়া সড়কেই গর্ভপাত ঘটেছে অনেক সন্তানসম্ভবা নারীর। চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গুনিয়া পর্যন্ত মাত্র ১ ঘন্টার দুরত্বের এই সড়ক অতিক্রম করতে এখন সময় লাগছে ২ থেকে ৪ ঘন্টা পর্যন্ত। জনগনের এই দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে হাটহাজারী, রাউজান এবং রাঙ্গুনিয়ার লাখো মানুষ। গত নভেম্বরে রাঙ্গুনিয়া ও রাউজানের হাজার হাজার মানুষ সমবেত হয়ে কাপ্তাই সড়কে দাড়িয়ে মানবন্ধন করে সড়ক সংস্কারের জন্য ওয়াসাকে এক মাসের আল্টিমেটাম প্রদান করে। কিন্তু এর পরও ওয়াসা দৃশ্যমান কোন কাজ করেনি।

রাঙ্গুনিয়া মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি অধ্যক্ষ কে এম মুছার সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মানবাধিকার কমিশনরে নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সেকান্দর চৌধুরী।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কোন প্রকল্পে সড়ক কাটাকাটি করা হলে তা দ্রুততার সাথে সংস্কারের জন্য নির্দিষ্ট অর্থ বরাদ্দ থাকে। কিন্তু কাপ্তাই সড়কে কেটে ক্ষত বিক্ষত করার পর এই সড়ক সংস্কারে জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ কোথায় গেলো তা সাধারণ মানুষ জানতে চায়। চট্টগ্রাম ওয়াসা’র ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্বহীনতা, অদক্ষতার কারনে প্রায় তিন বছর অতিক্রম হলেও কাপ্তাই সড়কটি সংস্কার করে দেওয়া হচ্ছে না বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ উপস্থাপন করা হয়।

লিখিত বক্তব্যে জানানো হয়, দীর্ঘদিন কাপ্তাই সড়ক সংস্কার না হওয়ায় এবং দিনের পর দিন দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ক্ষত বিক্ষত থাকায় সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রকল্পের অর্থ আত্মসাত হয়েছে বলে জনগনের সন্দেহ। সংবাদ সম্মেলন জানানো হয় আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কাপ্তাই সড়ক সংস্কারে দৃশ্যমান কোন ব্যবস্থা নেওয়া না হলে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এম ফয়জুল্লাহর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়া ওয়াসাকে সড়ক সংস্কারে বাধ্য করতে বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচী ঘোষনা করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাঙ্গুনিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী শাহ, রাঙ্গুনিয়ার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রেহেনা আক্তার, রাঙ্গুনিয়া মানবাধিকার কমিশনের সাধারন সম্পাদক মাস্টার ইসকান্দর মিয়া তালকুদার, মানবাধিকার কমিশনের সহ-সভাপতি মাস্টার দাউদুল ইসলাম, পোমরা ইউপি চেয়ারম্যান কুতুব উদ্দিন চৌধূরী, রাউজান মানবাধিকার কমিশনের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাসান সিকদার, সার্ক মানবাধিকার সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আরমান চৌধূরী প্রমুখ।