চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

মাদকে জড়িত থাকলে আমাকেও হত্যা করুন, সংসদে মাইজভাণ্ডারী

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৯ ২০:০৫:৫৫ || আপডেট: ২০১৮-০১-০৯ ২০:০৫:৫৫

মাদক বিশেষ করে ইয়াবায় দেশ ছেয়ে যাচ্ছে এবং এর জন্য একটি প্রজন্ম ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে বলে জাতীয় সংসদে বলেছেন চট্টগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য তরীকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারি। বলেছেন, স্কুলে স্কুলে চলে গেছে চলে গেছে ইয়াবা। এ থেকে দেশকে বাঁচানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে দেয়া বক্তব্যে মাইনভাণ্ডারি বলেন, সরকারের কাছে যদি তথ্য থাকে, তিনি নিজেও মাদক ব্যবসায় জড়িত, তাহলে যেন তাকেও হত্যা করা হয়।

‘কে, কারা এখানে আছেন, আমার জানার বিষয় না।…আমি নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারি, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান, যদি সরকারের কাছে যদি তথ্য থাকে, আমি এই ব্যবসার সাথে জড়িত, আমাকে হত্যা করুন।

‘আমাকে হত্যা করে হলেও দেশটাকে বাঁচান। দেশটাকে বাঁচানো অত্যন্ত প্রয়োজন। দেশ ছেয়ে যাচ্ছে মাদকে।’

সকালে নিজ কার্যালয়ে মাদককে ‘নতুন জঙ্গিবাদ’ হিসেবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর সন্ধ্যায় সংসদে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারি মাদককে জঙ্গিবাদের চেয়ে ভয়ঙ্কর হিসেবে উল্লেখ করেন।

সকালে পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তাদেরকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা (মাদক) জঙ্গিবাদের মতো আরেক জঙ্গি, এটা একেবারে…আমাদেরকে কঠোর হতে হবে।… ‘বহু মেধাবী শিক্ষার্থী নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, বহু ছেলেপুলে, একেকটা পরিবার ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে, পরিবারেও ওপর জুলুম, অত্যাচার হচ্ছে।…জঙ্গিবাদ যেভাবে দমন করেছেন, এভাবে মাদকের বিরুদ্ধেও অভিযান চালাতে হবে, মাদকের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে।’’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘মাদকাসক্তি আজকে সমাজকে ধ্বংস করছে। এ ক্ষেত্রে পুলিশ বাহিনীকে আমি আরও তৎপর হতে অনুরোধ করব। মাদক কোত্থেকে আসে, কারা ব্যবহার করে, কারা এর সঙ্গে সম্পৃক্ত, কারা এই মাদকের ব্যবসা করে-এ ব্যাপারে আপনাদেরকে আরও কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।’

সংসদে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু আমি যখনেই এলাকায় যাই…আইন শৃঙ্খলার বৈঠকে প্রথম কথাই আসে ইয়াবা নিয়ে। আজকে স্কুলে স্কুলে চলে যাচ্ছে।’

‘দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু আমরা একটা প্রজন্মকে শেষ করে দিচ্ছি। আজকে জঙ্গিবাদ নিয়ে কথা হচ্ছে, জঙ্গি দমন বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছে, আমরা বলে যাচ্ছি। ইসলামী মিটিংয়ে বলছি, বিভিন্ন বিষয়ে বলছি। আজকে তাদের চেয়ে সবচেয়ে বড় ভয়ঙ্কর হচ্ছে ইয়াবা ব্যবসায়ী, মাদক ব্যবসায়ী।’

‘সমগ্র দেশবাসী আজকে বাঁচতে চায়। আজকে লক্ষ লক্ষ নয় কোটি কোটি ছেলে আজকে বাঁচতে চায়। স্কুলে স্কুলে চলে গেছে এই মাদক ব্যবসা।’

মাদকের বিস্তার ছাড়াও গত ৬ জানুয়ারি পুলিশ প্রধান এ কে এম শহীদুল হকের একটি বক্তব্য নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যাখা দাবি করেন নজিবুল বশর। পুলিশ সপ্তাহকে সামনে রেখে সেদিন এক সংবাদ সম্মেলনে আইজিপি এক প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, ‘মাদক নির্মূল করতে আমরা ব্যর্থ হয়েছি, আবার জঙ্গিবাদ নির্মূল করতেও ব্যর্থ হয়েছি। এর কারণ হল আসক্তি।’

নজিবুল বশর বলেন, ‘কয়েকদিন আগে একটি বাহিনীর প্রধান বলেছেন, আমরা মাদক নির্মূল করতে পারিনি, জঙ্গি নির্মূল করতে পারি নাই। হয়ত সম্ভব না, এটা ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু সরকার এর দায়িত্ব নিতে পারে না। আমি এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যাখ্যা দাবি করব