চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮

ফটিকছড়িতে বিয়ের নয় মাসের মাথায় গৃহবধুর অাত্মহত্যা, হাসপাতালে লাশ রেখে স্বামী পলাতক!

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৪ ২২:৪০:৪৭ || আপডেট: ২০১৮-০১-০৫ ১৫:৪৬:২০

মীর মাহফুজ অানাম
নিজস্ব প্রতিবেদক, সিটিজি টাইমস

বিয়ের নয় মাসের মাথায় ফটিকছড়িতে এক প্রবাসীর স্ত্রী গলায় ফাঁস লাগিয়ে অাত্মহত্যা করার খবর পাওয়া গেছে।

অাজ বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার পাইন্দং ইউনিয়নের পাইন্দং গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধুর রনি অাকতার (১৯)। তিনি ওই গ্রামের প্রবাসী অাবুল কালামের(২৮) স্ত্রী। গৃহবধুর বাপের বাড়ি একই ইউনিয়নের দক্ষিণ পাইন্দং গ্রামের নুরুল অামিন ফোরম্যানের বাড়ি। তার বাবার নাম জহুর অাহম্মদ। তাদের দাবী স্বামী, শ্বাশুড়ি মিলে তাদের মেয়েকে হত্যা করেছে। ঘটনার পর পর স্ত্রীকে নাজিরহাটস্থ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে গেলেও স্বামী অাবুল কালাম লাশ রেখে পালিয়ে যান। সর্বশেষ তার কোন হদিস মেলেনি। তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটি(০১৮২১৮৭৫০৭৭) বন্ধ পাওয়া যায়।

পুলিশ হাসপাতাল থেকে লাশটি উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নয় মাস পূর্বে পাইন্দংয়ের তাজুর বাড়ীর এলাকার প্রবাসী অাবুল কালামের সাথে পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে অাবদ্ধ হয় রনি। বিয়ের পর থেকে শ্বাশুড় বাড়ীর লোকজনের সাথে তার মনোমালিন্য চলে অাসছিলো। এ নিয়ে তার সাথে একাধিকবার কথা কাটাকাটি ও ঝগড়া-বিবাদ বাঁধে।

নিহতের ভাই মুহাম্মদ ওসমান অভিযোগ করে বলেন, ‘স্বামী অাবুল কালাম তিন মাস অাগে বিদেশ থেকে দেশে অাসে। এরপর থেকে স্বামী, শ্বাশুড়ী ও তার পরিবারের লোকজন যৌতুকের টাকার জন্য রনিকে বিভিন্নভাবে চাপ দিতে থাকে। অাজ বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বামী অাবুল কালাম জানায় রনি গলায় ফাঁস দিয়েছে। তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে দেখি রনির মৃত লাশ। তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।’

ফটিকছড়ি থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ও.সি) জাকির হোসাইন মাহমুদ জানান, ‘খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতাল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে। লাশের গলায় অাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে, অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।