চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮

চট্টগ্রামে চার নারী ধর্ষণ : আরও একজন ঢাকায় গ্রেফতার

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৩ ২০:৪০:৫৯ || আপডেট: ২০১৮-০১-০৩ ২৩:৩৭:৫১

চট্টগ্রামে কর্ণফুলী থানা এলাকায় প্রবাসীর বাড়িতে ঢুকে চার নারীকে ধর্ষণের ঘটনায় আরো একজনকে আটক করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গ্রেফতার জহিরুল ইসলাম হাওলাদার (২৬) ঝালকাঠি জেলার সুতালরি থানার কৃঞ্চকাঠি গ্রামের হানিফ হাওলাদারের ছেলে।

ওই যুবকের বিষয়ে জবানবন্দিতে তথ্য দিয়েছিলেন গ্রেফতার হওয়া আসামি মিজান মাতব্বর।

বুধবার (০৩ জানুয়ারি) সকাল পৌনে ১০টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ি থানার সায়েদাবাদ বাসস্টেশন থেকে জহিরুলকে আটক করা হয়।

এই নিয়ে এই ধর্ষণের ঘটনায় মোট সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, মিজান মাতব্বরের জবানবন্দিতে মাইদুল নামে এক যুবকের কথা এসেছিল। মাইদুলের সঙ্গে এক যুবক সেখানে গিয়েছিলেন এমন তথ্য আছে। ওই যুবকই আটক হওয়া জহিরুল।

সন্তোষ কুমার চাকমা আরো জানান, আটকের পর জহিরুলকে চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে পাঠানো হবে।

গত ১২ ডিসেম্বর গভীর রাতে কর্ণফুলীর বড়উঠান ইউনিয়নের শাহ মিরপুর গ্রামে একটি বাড়িতে ডাকাতি করতে গিয়ে বাড়ির চার নারীকে ধর্ষণ করে ডাকাতরা। চারজনের মধ্যে তিনজন প্রবাসী তিন ভাইয়ের স্ত্রী, অন্যজন তাদের বাড়িতে বেড়াতে আসা ননদ।

এ ঘটনায় মামলা নিতে পুলিশের বিরুদ্ধে গড়িমসি করার অভিযোগের পর ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান জাবেদের নির্দেশে কর্ণফুলী থানা পুলিশ প্রায় সাতদিন পর মামলা নেয়।

২৬ ডিসেম্বর মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পায় পিবিআই। ওইদিনই মিজান মাতব্বর ও আবু সামা নামে দুজনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর দুজন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

২৭ ডিসেম্বর হান্নান মেম্বার নামে আরেকজনকে আটক করা হয়েছে, যাকে ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে জানিয়েছে পিবিআই।

এর আগে এ ঘটনায় পুলিশ আরো তিনজনকে গ্রেফতার করে। তবে আদালতে দেয়া জবানবন্দির মধ্যে তাদের কারো নাম কেউ উল্লেখ করেনি।