চট্টগ্রাম, , রোববার, ১৯ আগস্ট ২০১৮

চবিতে অবরুদ্ধ শিক্ষিকা, পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৩ ১৫:৫০:০৯ || আপডেট: ২০১৮-০১-০৩ ১৫:৫৩:৩৩

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) সংস্কৃত বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. সুপ্তিকণা মজুমদারকে প্রায় দেড় ঘণ্টা নিজকক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। পরীক্ষা দেয়ার অনুমতি না দেয়ায় বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তার কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয় দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা।

জানা গেছে, অফিস কক্ষ ও পরীক্ষার হলেও তালা লাগিয়ে দেওয়া হয়। তবে বেলা ১২টায় প্রক্টরিয়াল বডি আসলে শিক্ষার্থীরা তালা খুলে দেয়। এ ঘটনায় বুধবারের পূর্ব নির্ধারিত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার বেলা ১১টা থেকে দ্বিতীয় বর্ষের ২০১ নং কোর্সের পরীক্ষা ছিল। কিন্তু ক্লাস উপস্থিতির হার কম থাকায় সাত শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দেয়ার অনুমতি দেয়া হয়নি। পরবর্তীতে তারা ফের বিভাগীয় সভাপতি বরাবর প্রক্টরের সুপারিশকৃত আবেদন দেয়ার পরও তা বাতিল করে বিভাগীয় একাডেমিক কমিটি। ফলে আজ পরীক্ষা শুরুর আগেই শিক্ষার্থীরা তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে।

এসময় শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, চাকরিজীবী এক শিক্ষার্থী ক্লাস না করেও পরীক্ষা দেয়ার অনুমতি পায়। আর ক্লাস করেও আমাদের পরীক্ষার হলে বসতে দেয়া হচ্ছে না। প্রক্টরের লিখিত সুপারিশেও অনুমতি দেয়া হচ্ছে না। এক বিভাগে দুই নীতি চলতে পারে না।

এদিকে এসব অভিযোগের বিষয়ে সংস্কৃত বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. সুপ্তিকণা মজুমদার বলেন, ৭ শিক্ষার্থীর উপস্থিতির হার শতকরা ৩০ ভাগেরও কম ছিল। তারা দু’বার আবেদন করলেও একাডেমিক কমিটির সর্বসম্মতিক্রমেই তা বাতিল করা হয়। আমার একার পক্ষে কিছু করার সুযোগ নেই। আর তারা যে অভিযোগ দিচ্ছে তা সঠিক নয়। আমার কোর্সে চাকরিজীবী ওই শিক্ষার্থীর উপস্থিতির হার শূন্য ছিল।

আজকের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এখন তো আর পরীক্ষা নেয়া সম্ভব নয়। একাডেমিক কমিটির জরুরি সভায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর লিটন মিত্র বলেন, এ ঘটনার খবর শুনেই একজন সহকারী প্রক্টর গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে তারা তালা খুলে দেয়। বিষয়টি নিয়ে আমরা সভাপতির সঙ্গে কথা বলছি।