চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮

ফোরজি সেবা: অ্যাকশন ফেব্রুয়ারিতে

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৩ ১১:৪০:৫৫ || আপডেট: ২০১৮-০১-০৩ ১১:৪০:৫৫

টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) দেশে ফোরজি সেবা চালু করতে আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি তিনটি ভিন্ন ব্যান্ডের জন্য অকশন দেবে। আর আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ফোরজি লাইসেন্স ইস্যু করবে সরকার।

নতুন বছরে ফোরজি/এলটিই সেবা চালু করতে ইতিমধ্যেই প্রক্রিয়া শুরু করেছে এবং সেবা প্রদানে মোবাইল নম্বর পোর্টাবিলিটি (এমএনপি) অপারেটর নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, দুইটি নতুন কোম্পানি ফোরজি / এলটিই লাইসেন্স নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তবে তিনি কোম্পানি দুইটির নাম প্রকাশে অস্বীকার করেন।

সূত্র জানিয়েছে, নতুন বছরে দীর্ঘ প্রতীক্ষিত মোবাইল নম্বর পোর্টাবিলিটি (এমএনপি) চালু করার মাধ্যমে যোগাযোগ সেক্টরের আরো একটি উইং সংযুক্ত হতে যাচ্ছে। বিটিআরসি গত ৩০ নভেম্বর এমএনপি যৌথ কোম্পানি ইনফোজিলিয়ন বিডি টেলিটক কনসোর্টিয়ামের কাছে লাইসেন্স হস্তান্তর করে। কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাবরুর হোসেন বলেন, আমরা লাইসেন্সের শর্তানুযায়ী আগামী মার্চ মাসের মধ্যে সেবা প্রদানে প্রস্তুত। কোম্পানি অবশ্যই লাইসেন্স পাবার ১৮০ দিনের মধ্যে সেবা দেবে।

এছাড়া নতুন বছরেই দেশের প্রথম যোগাযোগ স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু-১’ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করবে বলে জানিয়েছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। তিনি বলেন, দেশের প্রথম যোগাযোগ স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু -১ এখন মহাকাশে উৎক্ষেপণের অপেক্ষায় আছে। এটির সফল প্রস্তুত কাজ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। এটি উৎক্ষেপণের পর বাংলাদেশ ৫৭তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইট ওয়নিংক্লাবে যোগ দিবে।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালে সকল উন্নয়ন কর্মকাণ্ড দৃশ্যমান হবে। জনগণ এর সুফল পাবে। তিনি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার গৃহীত উন্নয়ন কর্মসূচির উল্লেখ করে বলেন, সরকার আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থার সুফল বয়ে আনতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। বাংলাদেশ টেলিভিশন চ্যানেল, টেলিফোন এবং বেতার সংযোগের জন্য স্যাটেলাইট ভাড়া বাবদ বছরে ১৪ মিলিয়ন মাকির্ন ডলার ব্যয় করে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চালু হবার পর দেশ বছরে ১১০ থেকে ১২০ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করতে সক্ষম হবে। মোবাইল হ্যান্ডসেট সংযোজনে স্থানীয় কোম্পানিগুলোও এগিয়ে আসছে। ওয়ালটনের অনুসরণে স্থানীয় দুইটি কোম্পানি ডব্লিউই ও সিম্পনি মোবাইল হ্যান্ডসেট সংযোজনের লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছে। এছাড়া দক্ষিণ কোরিয়ার বিশাল কোম্পানি স্যামসাং স্থানীয়ভাবে হ্যান্ডসেট তৈরির আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তিনটি স্থানীয় কোম্পানি মাসে ১০ লাখ হ্যান্ডসেট তৈরি করবে।

বাংলাদেশ ভারতের উদ্যোগে চালু সাউথ এশিয়ান স্যাটেলাইটেও যুক্ত হচ্ছে। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ২০১৭ সালের ২৩ মার্চ একটি চুক্তি হয়েছে। ভারত ও বাংলাদেশের পাশাপাশি শ্রীলংকা, ভুটান, মালদ্বীপ ও নেপাল এই স্যাটেলাইটে যুক্ত হওয়ার ইতিবাচক আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

এই স্যাটেলাইট টেলিকমিউনিকেশন এবং আবহাওয়া সম্পর্কিত তথ্যাদির সুফল পেতে তৈরি করা হয়েছে। ইন্ডিয়ান অ্যাপস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (আইএসআরও) এটি তৈরি করেছে।

এদিকে বিটিসিএল কানেকটিভিটিকে জোরদার করতে একটি একক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ভয়েস ট্রান্সমিশনের পাশাপাশি ভিডিও এবং ডাটা ফ্যাসিলিটির জন্য ট্রিপল- প্লে নেটওয়ার্ক চালুর একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। এর আওতায় ১৬ লাখ সংযোগ ধারণক্ষমতাসম্পন্ন থ্রি ইন্টারনেট মাল্টিমিডিয়া সাব-সিস্টেম প্ল্যাটফর্ম প্রতিষ্ঠা করা হবে। এ ছাড়া ২৩৬৭ কিলোমিটার ফাইবার অপটিক প্যানেলের দ্বারা কুপার ক্যাবল প্রতিস্থাপন এবং ৭৯৩ কিলোমিটার নতুন কুপার ক্যাবলও স্থাপন করা হবে।

এ ছাড়া সার্বক্ষণিক টেলিফোন সংযোগ, নেটওয়ার্ক অপারেশন ও মেইনটেন্যান্সের জন্য একটি কেন্দ্রীয় মনিটরিং সিস্টেমও চালু হবে।