চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮

‘শাস্তিটা তামিমের প্রাপ্যই ছিল’

প্রকাশ: ২০১৮-০১-০২ ১৮:২১:৩২ || আপডেট: ২০১৮-০১-০২ ১৮:২১:৩২

আগের দিন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এক নজিরবিহীন ঘটনার জন্ম দিয়েছে। উইকেটের সমালোচনা করায় ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম ব্যক্তি হিসেবে অর্থদণ্ড পেয়েছেন তামিম ইকবাল খান। ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সাথে সতর্ক করা হয়েছে কঠোরভাবে। তামিমের কথায় দেশের ক্রিকেটের অনেক বড় ক্ষতি হতে পারতো বলে মনে করেন বাংলাদেশ দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। আর তাই তামিমের এই শাস্তি প্রাপ্য বলেই দাবী করেছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সোমবার অনুশীলন শেষে তামিমের শাস্তি প্রসঙ্গটা উঠে আসে সুজনের কথায়। ‘শাস্তিটা প্রয়োজন ছিল। সেজন্যই হয়েছে। দিন শেষে ভাল খেলতে হবে সেটাই আমাদের কাজ। বিসিবিতে এত লোক আছে, অভিযোগ থাকলে বিসিবিকে জানানোই ভাল মনে হয়। অনেক ডিপার্টমেন্ট আছে। সভাপতিকেও বলতে পারে।’ তামিমের বিষয়টি নিয়ে ব্যাখ্যায় গিয়ে সুজন বলেছেন, ‘সেটা যখন আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে যায় তখন আমাদের ক্ষতির কারণ হতে পারে তা কিন্তু মাথায় রাখতে হবে। কারণ ঢাকায় এর (মিরপুর) বাইরে কিন্তু আর ভেন্যু নেই। ঢাকার মাঠ বন্ধ হয়ে গেলে খেলা দেবেন কোথায় আপনি?’

এবারের বিপএলে ঢাকার চূড়ান্ত পর্বের একটি ম্যাচের পর উইকেটকে ‘জঘন্য’ বলেছিলেন তামিম। এর সাথে আউটফিল্ড এবং কিউরেটরের সমালোচনা করেছিলেন। মূলত ভাষার প্রয়োগ এবং মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আউটফিল্ড ও কিউরেটরের সমালোচনা করায় তামিমকে এ শাস্তি দেওয়া হয়। ২০১৬ সালের শুরুতে মিরপুরের আউটফিল্ডের সংস্কার কাজ শুরু করে বিসিবি। এরপর সে বছরের অক্টোবরে আফগানিস্তান ও ইংল্যান্ড সিরিজ শেষে মাঠের তীব্র সমালোচনা করে আইসিসি। সঙ্গে দুটি ডিমেরিট পয়েন্টও পায় মিরপুর স্টেডিয়াম। তাই তামিমের ব্যাপারটি স্বাভাবিকভাবে নেয়নি বিসিবি। তাদের ধারণা, আইসিসি নিজেদের পর্যবেক্ষণের চেয়ে খেলোয়াড়দের মন্তব্য বেশি গুরুত্বের সঙ্গেই দেখে।

সুজনের মতে তামিমের কথা তার দেশকে ছোট করার মতোই। ‘জাতীয় খেলোয়াড়, ওরা হচ্ছে রোল মডেল। দেশের কাছে রোল মডেল। তাদের কোনো বক্তব্য মানুষের কাছে খারাপ দেখাবে বা দেশকে ছোট করবে সেটা কোনোভাবেই বিসিবি সেটা ছাড় দেবে না।’ সুজন নিজেও বিসিবি পরিচালক। তামিমের প্রসঙ্গে একজন বোর্ড কর্তার কণ্ঠেই কথা বলেছেন জাতীয় দলের এই নিয়মিত ম্যানেজার, ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপনারা হয়তো জানেন দু’টি ডিমেরিট পয়েন্টের ব্যাপার ছিল। আমরা যদি বলি যে গ্রাউন্ড খারাপ হয়ে গেছে, আইসিসিতে গেলে হয়তোবা এই ভেন্যুই বন্ধ হয়ে যাবে। আমরা যাই-ই বলি দেশের ক্রিকেটের সম্মানটা রেখে কথা বলাটা যৌক্তিক হবে।’

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রংপুর রাইডার্সের ম্যাচ শেষে উইকেটের সমালোচনা করেন তামিম। সমালোচনার এক পর্যায়ে মিরপুরের এ উইকেটকে ‘জঘন্য’ বলেছিলেন। এরপর তামিমকে এ বিষয়ের ব্যাখ্যা দিতে শো-কজও করে বিসিবি। বিপিএল শেষে এর শুনানি হয়। আর সোমবারই তামিমের শাস্তির কথা ঘোষণা করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।