চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২২ আগস্ট ২০১৮

স্পিকার্স কাউন্সিলের রিইউনিয়ন ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠান

প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৭ ২০:৩৫:৩২ || আপডেট: ২০১৮-০১-২৭ ২০:৩৫:৩২

“আমাদের মাতৃভাষার পাশাপাশি ইংরেজিও চর্চা করতে হবে, এখন ইংরেজি জানা ছাড়া জীবনযাপন ও প্রায় অসম্ভব” — স্পিকার্স কাউন্সিলের রিইউনিয়ন ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে মাননীয় মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন।

স্পিকার্স কাউন্সিলের উদ্যোগে উদযাপিত হয়েছে এসএসসি ইংলিশ ক্যাম্প ও রেগুলার স্পোকেন ইংলিশ ব্যাচের উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট প্রদান এবং রিইউনিয়ন একিসাথে হয়েছে ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের সাথে আইইএলটিএস টেস্ট পার্টনারশিপের তৃতীয় বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান।

চট্টগ্রাম এম এ আজীজ স্টেডিয়ামের জিমন্যাশিয়াম মিলনায়তনে গত শুক্রবার (২৬শে জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রতিবারের মতো এবারো স্পিকার্স কাউন্সিলের উদ্যোগে হওয়া এই অনুষ্ঠানে আমি পুনরায় উপস্থিত থাকতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি । স্পিকার্স কাউন্সিল তাদের শিক্ষার্থীদের জন্য এতো বড় একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে, এজন্য আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই। বর্তমানে পুরো পৃথিবীতে ডিজিটালাইজেশনের ছোয়া লেগেছে এবং এই মডার্ণ যুগে টিকে থাকতে হলে ইংরেজি জানাটা অপরিহার্য।

পরে ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের সাথে আইইএলটিএস পার্টনারশিপের তৃতীয় বছরে পদার্পণ উপলক্ষে প্রধান অতিথি সবাইকে নিয়ে কেক কাটেন।

সিটি মেয়র ইংরেজি শিক্ষায় স্পিকার্স কাউন্সিলের অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধার কথা উল্লেখ করে নগরীতে এ ধরনের একটি প্রতিষ্ঠান চালু করায় স্পিকার্স কাউন্সিল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। ওয়ানস্টপ সেবা কেন্দ্র হিসেবে স্পিকার্স কাউন্সিল চট্টগ্রামের বিভিন্ন সেবায় শিক্ষার্থীরা ঢাকায় যাওয়ার ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবেন। যা দেশে চট্টগ্রামের সম্মান বাড়াবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধান অতিথি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেয়ার পর প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ স্পিকার্স কাউন্সিল কে যারা বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে এসেছেন বিভিন্ন সময়ে এরকম প্রায় ১০০ জনকে “ফ্রেন্ড অফ স্পিকার্স কাউন্সিল” নামক ক্রেস্ট বিতরণ করেন।

স্পিকারস কাউন্সিল এর প্রধান নির্বাহী ইমরান আহমেদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের ডিরেক্টর এক্সামিনেশন্স সেভাস্টিয়ান পিয়ার্স,আলিয়স ফ্রসেজ ফরাসি দূতাবাস চট্টগ্রামের ডিরেক্টর ডক্টর সেলভাম থরেজ, রুপালী ব্যাংক এর ডিরেক্টর ও চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এক্স প্রেসিডেন্ট আবু সুফিয়ান,বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রয়েল এসোসিয়েটস এর স্বত্বাধিকারী দিদারুল আলম দিদার, ন্যাশনাল মেরিটাইম ইন্সটিটিউট বাংলাদেশ এর প্রিন্সিপাল ক্যাপ্টেন ফয়সাল আজীম, বারকোড রেস্টুরেন্ট গ্রুপ এর স্বত্বাধিকারী মঞ্জুরুল হক, এ এন জেড প্রপার্টিজ এর নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর শাহরিয়ার রিমন, দৃষ্টি চট্টগ্রাম এর ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট মাসুদ বকুল,ইউনিস্যাব এর প্রেসিডেন্ট মামুন মিয়া , ওয়ার্ল্ড অরফান সেন্টার এর চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ আমান উল্লাহ । এছাড়া স্পিকারস কাউন্সিল লিমিটেড পরিবার এর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন ডিরেক্টর স্পিকারস কাউন্সিল শাকিল আহমেদ তানভির, চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভারসিটি’র সহযোগী অধ্যাপক সাইফুর রহমান, প্রিমিয়ার ইউনিভারসিটি’র সহকারী অধ্যাপক স্টিভ ডি ওস্কার রোজারিও, স্পিকার্স কাউন্সিলের অপারেশন ম্যানেজার আকিবুল ইসলাম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, স্পিকার্স কাউন্সিল ২০১২ সালে ব্রিটিশ কাউন্সিলের আইইএলটিএস রেজিস্ট্রেশন সেন্টার হিসেবে যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে স্পিকার্স কাউন্সিল আইইএলটিএস রেজিস্ট্রেশন পয়েন্ট, প্রিপারেশন কোর্স প্রভাইডার, আইইএলটিএস টেস্ট ভেন্যু, এপটিস টেস্ট বিজনেস পার্টনার এবং বিদেশে উচ্চশিক্ষার পরামর্শ বিষয়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে তাদের একটি কন্সার্ন এডুস্টেশান লিমিটেড ওয়ানস্টপ সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এ সময়ে প্রতিষ্ঠানটিতে হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থী শিক্ষাগ্রহণ করেছে। অনুষ্ঠানে স্পীর্কাস কাউন্সিলের কার্যক্রমের বিবরণ তুলে ধরেন ডিরেক্টর শাকিল আহমেদ তানভীর এবং ডিরেক্টর ও সিইও ইমরান আহমেদ। স্পিকার্স কাউন্সিল এর কর্ণধার শাকিল আহমেদ তানভির স্পিকার্স কাউন্সিল গড়ে ওঠার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, জিইসি মোড়ে চারবন্ধু মিলে ২০১২ সালে একটি মাত্র ফ্লোর নিয়ে শুরু করি এ ট্রেনিং সেন্টার, একটা সময় আইইএলটিএস এর কোর্স ফী অনেক ছিলো,কিন্তু স্পীকার্স কাউন্সিল ব্যবসায়ীক চিন্তা ভাবনার বাইরে এসে শুধুমাত্র শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষার কথাভেবেই অনেক কম খরচে শুরু করেন আইইএলটিএস এর কোর্স। এটি সারাদেশের মধ্যে প্রথম চট্টগ্রাম থেকেই শুরু হয়। মাত্র ৪’শ ছাত্র-ছাত্রী থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এখন এই সংখ্যা দাড়িয়েছে ২০ হাজার এ ।

প্রধান অতিথি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেয়ার পর প্রধান অতিথি শিক্ষার্থীদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ এবং ফ্রেন্ড অফ স্পিকার্স কাউন্সিল ক্রেস্ট বিতরণ করেন। উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মধ্য হতে লটারির মাধ্যমে ভাগ্যবান শিক্ষার্থী আসমাউল সালমান কে স্পিকার্স কাউন্সিল পরিবারের পক্ষ হতে মেয়র মালেশিয়া ভ্রমণের বিমান টিকেট তুলে দেন।

এ অনুষ্ঠানে স্পিকার্স কাউন্সিলের বর্তমান ও সাবেক প্রায় ৮হাজারের ও বেশি ছাত্র ছাত্রী উপস্থিত ছিলো।

স্পিকারস কাউন্সিলের কো অর্ডিনেটর তামরিন,এন্ড্রিয়া এবং দিয়াব এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ মহা আয়োজনের সাংস্কৃতিক আয়োজনে দর্শকবৃন্দ মেতে উঠেন জনপ্রিয় ব্যান্ড দল বে অফ বেংগাল এবং তীরন্দাজ এর পরিবেশনায়। এই মনমাতানো আয়োজনে আরো ছিল ও২ এর হিপহপ ডান্স, রোড স্টান্ট রকার্জ এর স্টান্ট শো এবং শেষ ভাগে ছিল ডিজে নিশ এর মনমাতানো পরিবেশনা। এছাড়া খাবার এবং স্যুভেনির স্টল নিয়ে হাজির ছিলো বারকোড রেস্টুরেন্ট , গ্রীন অলিভ রেস্টুরেন্ট , গ্রীডি গাটস রেস্টুরেন্ট এবং আমরা চট্টগ্রাম। এতে ইভেন্ট পার্টনার হিসেবে ছিলো রেড কার্পেট ইভেন্টজ ও নেক্সট ম্যানেজমেন্ট সল্যুশন, ডিজিটাল মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিলো ডুডল এবং ফটোগ্রাফি পার্টনার হিসেবে ছিলো ডি মেমোরিয়ো।

এছাড়াও উল্লেখ্য যে স্পিকার্স কাউন্সিলের অন্যতম ডিরেক্টর প্রবাসী ব্যবসায়ী সাদ্দাম এইচ. খান এবং স্পিকার্স কাউন্সিলের জনপ্রিয় শিক্ষক বর্তমানে মালেশিয়ার পিএইচডি স্কলার প্রফেসর বিকে ধর(এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর,ইউএসটিসি বিজনেস ফ্যাকাল্টি) দের স্পিকার্স কাউন্সিলের প্রতি বিশেষ অবদান এই অনুষ্ঠানে স্মরণ করা হয়।