চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮

‘পরিকল্পিতভাবে হত্যার পর ডোবায় ফেলে দেয়া হয় যুবকের লাশ’

প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৬ ২০:৩০:০৭ || আপডেট: ২০১৮-০১-২৭ ১১:৪৫:৪৬

সীতাকুন্ড প্রতিনিধি

পরিকল্পিতভাবে হত্যার পর ডোবায় ফেলে দেওয়া হয় যুবকের লাশ প্রাথমিক ভাবে এমনটা ধারনা করছে পুলিশ। সীতাকুণ্ডের কুমিরা এলাকায় ডোবা থেকে জিয়া উদ্দিন বাবলু (১৯) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার বিকাল ৫ টায় উপজেলার কুমিরা ঘাটঘর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

সে ওই এলাকার আলাউদ্দিনের পুত্র বলে জানা গেছে। বাবলু মোস্তফা হাকিম ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী। লেখাপড়ার পাশাপাশি সে স্থানীয় কেএসআরএম কারখানায় কাজ করতো।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাইরে যাওয়ার কথা বলে ঘর থেকে বের হয় বাবলু। কিন্তু গভীররাত হলেও সে ফিরে না আসায় এবং তার ব্যবহৃত মুঠোফোন বন্ধ থাকায় চিন্তিত হয়ে পড়েন তার বাবা,মা। স্থানীয় বাজার ও সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজির পর তার সন্ধান পেতে শুক্রবার দুপুরে সীতাকুণ্ড থানা পুলিশের শরনাপন্ন হন তার বাবা। বিকালে স্থানীয় কয়েকজন কৃষক কাজ করার সময় বিল সংলগ্ন ডোবাতে বাবলুর লাশ ভাসতে দেখে তার পরিবার ও সীতাকুণ্ড থানা পুলিশকে অবহিত করেন। খবর পেয়ে সীতাকুণ্ড থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইফতেখার হাসান, ওসি (তদন্ত) মোজাম্মেল ও উপ-পরিদর্শক ইকবাল হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে ডোবা থেকে বাবলুর মরদেহ উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।

সীতাকুণ্ড থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইফতেখার হাসান জানান, আমরা ঘটনাস্থল থেকে বাবলুর মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছি। তার গলা,পেট ও হাতে ধারালো ছুরির বেশকয়েকটি আঘাতের চিহৃ রয়েছে। ডোবার পাড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে রক্তের দাগ। পরিকল্পিতভাবে হত্যার পর তাকে ডোবায় ফেলে দেওয়া হয়েছে বলে প্রাথমিক ধারনা করা হচ্ছে। তবে ময়না তদন্তের রির্পোট পেলে হত্যার সঠিক কারন বেরিয়ে আসবে।