চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮

সীতাকুণ্ডে পুলিশের গুলিতে নিহত ১, প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৫ ০০:২৮:০৮ || আপডেট: ২০১৮-০১-২৫ ১১:৪০:৫২

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে আসামি ধরতে গেলে জনতার সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশের গুলিতে একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত এবং আরও দুজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বুধবার (২৪ জানুয়ারি) রাত ১০ টার দিকে এই ঘটনা ঘটেছে।ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসী একঘন্টা মহাসড়ক অবরোধ করলে বিশাল যানজট লেগে যায়।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ পুরিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম জানান, গুলিবিদ্ধ ৩ জনকে হাসপাতালে আনার পর রাত সাড়ে ১০টার দিকে চিকিৎসকরা একজনকে মৃত ঘোষনা করেন। আহতবস্থায় আরো দুজনকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, রাত সাড়ে ৯টার দিকে সাদা পোষাকে পুলিশ পরিচয় দিয়ে ভাটিয়ারী তেলীপাড়া থেকে কয়েকজনকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসীরা কি অভিযোগে আটক করা হচ্ছে জানতে চায় এবং কোন ওয়ারেন্ট বা মামলা থাকলে কাগজ দেখাতে বললে পুলিশ তা দেখাতে পারেনি। এ নিয়ে পুলিশের সাথে গ্রামবাসীর তর্কবির্তক চলাকালে পুলিশ ‍উপরের দিকে ফাঁকা গুলি চালালে গ্রামবাসি ক্ষিপ্ত হয়ে ডাকাত ডাকাত বলে তাদের ধাওয়া করে।

এতে পুলিশ গ্রামবাসীকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে।

গুলিতে সাইফুল ইসলাম ২ে২), জয় (১৭) ও ভোলা (৫৫) নামে ৩ জন আহত হয়। তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে সাইফুল মারা যায়। নিহত সাইফুল ভাটিয়ারী ইউনিয়নের তেলীপাড়া এলাকার সামশুল আলমের পুত্র।

ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসী ভাটিয়ারী এলাকায় ঢাকা- চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করলে মহাসড়কের উভয় দিকে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

প্রায় একঘন্টা পর রাত সাড়ে ১০টার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেয়ার পর মহাসড়ক অবরোধ তুলে নেয়া হয়। তবে সাইফুল ইসলাম এর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকাতে ‍উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ঘটনার পর থেকে সীতাকুণ্ড থানার ওসি ইফতেখার হাসানকে বার বার ফোন করা হলেও তিনি ফোন কেটে দেন। থানার অন্যান্য কর্মকর্তারাও ফোন ধরেননি।

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা ঘটনা সম্পর্কে বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। এএসপি কিংবা ওসির সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।