চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

খালেদাকে ক্ষমা চেয়ে নোটিশ প্রত্যাহারের আহ্বান আ’লীগের

প্রকাশ: ২০১৭-১২-২০ ১৮:৫৭:১৯ || আপডেট: ২০১৭-১২-২০ ১৮:৫৭:১৯

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লোক দেখানো আইনি নোটিস পাঠানোর কারণে ক্ষমা প্রার্থনা করে তা প্রত্যাহার না করলে বিষয়টি আদালতে মোকাবেলা করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন একথা বলেন তারা।

প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপি চেয়ারপারসনের দেয়া আইনি নোটিসের প্রেক্ষিতে সংবাদ সম্মেলনটি আয়োজন করা হয়। আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া যে আইনি নোটিস পাঠিয়েছেন, সেটি লোক দেখানো একটি নোটিস। নিজের ও সন্তানদের দুর্নীতি আড়াল করতেই তিনি এ কাজ করেছেন। তিনি জানেন তার দুর্নীতি মামলার রায় যেকোনো দিন হয়ে যেতে পারে। তাই তার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। তিনি (বেগম জিয়া) তার এই নোটিস প্রত্যাহার না করলে এর ফয়সালা আইনের মাধ্যমে আদালতে করা হবে। এক্ষেত্রে তিনিই হারবেন।

তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া ও তার দুই ছেলে মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে দুর্নীতি করেছেন। দেশের টাকা বিদেশে পাচার করার জন্য জনসাধারণের কাছে খালেদা জিয়াকে ক্ষমা চাইতে হবে।

হাছান বলেন, তাদের দুর্নীতি আজ বিশ্ব মিডিয়ায় প্রচারিত। সৌদি আরবসহ বিশ্বের ১২টির মতো দেশে তাদের অবৈধ সম্পদের খোঁজ পাওয়া গেছে। তাদের এই দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদকে আড়াল করতেই তিনি (খালেদা) এই মানহানিকর কাজটি করেছেন। তাকে ক্ষমা চাইতেই হবে। নোটিস প্রত্যাহার না করলে তিনিই পস্তাবেন।

হাছান মাহমুদ আরো বলেন, খালেদা জিয়ার বদৌলতে বাংলাদেশ দুর্নীতিতে পর পর পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়। তার ছেলে তারেক রহমানকে জনগণ আলিবাবা চল্লিশ চোরের থেকেও বড় চোর বলে আখ্যায়িত করেছে। সৌদি আরবে যে ১১ জন যুবরাজ গ্রেফতার হয়েছেন তাদের মধ্যে দুজন স্বীকার করেছেন তারা জিয়া পরিবারের কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলেন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়ার সৌদি আরবে শপিং মল, বিল্ডিংসহ নানা সম্পত্তি রয়েছে এমন কথা বেরিয়ে আসছে। টেলিভিশনের খবর অনুযায়ী বলা হচ্ছে পৃথিবীর অন্তত ১২টি দেশে বেগম খালেদা জিয়া এবং তার পরিবারের হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি রয়েছে। এই যে সম্পত্তি এই সম্পত্তি লুটপাটের সম্পত্তি। বাংলাদেশ থেকে লুটপাট করে এই সম্পত্তি তারা অর্জন করেছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ। তিনি এতিমদের টাকা পর্যন্ত আত্মসাৎ করেছিলেন। এ কারণে আজ তিনি আদালতে চক্কর কাটছেন। এই মামলা তো আর শেখ হাসিনা বা তার সরকার দেয় নাই। দিয়েছে খালেদা জিয়ার পছন্দের সরকার। এই উকিল নোটিস পাঠানোর বিষয়টি মানহানিকর। তাকে ক্ষমা চেয়ে এটি প্রত্যাহার করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবাহান গোলাপ প্রমুখ।