চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

চট্টগ্রামে স্কুলভর্তিতে অতিরিক্ত ফি নিলে স্বীকৃতি বাতিল

প্রকাশ: ২০১৭-১২-১৩ ২১:৪৭:০৬ || আপডেট: ২০১৭-১২-১৪ ১২:১৯:২৯

স্কুল ভর্তিতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সরকারি নীতিমালার বাইরে অতিরিক্ত ফি নেওয়া হলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, একই সাথে একাডেমিক স্বীকৃতিও বাতিল করা হতে পারে।

বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে বেসরকারি স্কুল অ্যান্ড কলেজে নিম্নমাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও সংযুক্ত প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালা বিষয়ে ভর্তি তদারকি ও পর্যবেক্ষণ কমিটির সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় নগরীর বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ, প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, ভর্তি নীতিমালা অনুযায়ী ভর্তির আবেদন ফরমের জন্য এমপিওভুক্ত, আংশিক এমপিওভুক্ত এবং এমপিও বর্হিভূত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সর্বোচ্চ ২০০ টাকা পর্যন্ত নেওয়া যাবে। সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি সর্বসাকুল্যে মফস্বল এলাকায় ৫০০, পৌর ও উপজেলা এলাকায় ১ হাজার, জেলা সদর এলাকায় ২ হাজার এবং নগরীতে সর্বোচ্চ ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত নেওয়া যাবে।

একই প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এক ক্লাস থেকে পরবর্তী ক্লাসে ভর্তির ক্ষেত্রে সেশন চার্জ নেয়া যাবে কিন্তু পুনঃভর্তির ফি নেয়া যাবে না।

প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির জন্য লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী নির্বাচন করতে হবে জানিয়ে জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন,  লাটারি ভর্তি কমিটির সদস্যদের উপস্থিতি ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে। লাটারির মাধ্যমে নির্বাচিত শিক্ষার্থীর তালিকা প্রস্তুত করার পাশাপাশি অপেক্ষমান তালিকাও প্রস্তুত রাখতে হবে। নির্বাচিত শিক্ষার্থী নির্ধারিত তারিখের মধ্যে ভর্তি না হলে অপেক্ষমান তালিকা থেকে পর্যায়ক্রমে ভর্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে কোন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নীতিমালার বাইরে অতিরিক্ত টাকা আদায় করতে দেওয়া হবে না। এর বাইরেও কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যদি নীতিমালাকে তোয়াক্কা না করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেলে জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ভর্তিতে নৈরাজ্য ঠেকাতে জেলা প্রশাসন সোচ্ছার রয়েছে।

সভায় সহকারী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম, ক্যাব চট্টগ্রামের সভাপতি এসএম নাজের হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক গাজী ইকবাল বাহার ছাবেরী, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজম রনি, চট্টগ্রাম রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মুহাম্মদ কামারুজ্জামান, কর্ণফুলী পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবু বকর সিকদার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।