চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বিএনপি দিয়েছিল ষোলশ, আমরা ১৬ হাজার মেগাওয়াট: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০১৭-১২-১০ ১১:৫৯:৩৮ || আপডেট: ২০১৭-১২-১০ ১১:৫৯:৩৮

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি সরকার ষোলশ মেগাওয়াট বিদ্যুতের রিজার্ভ রেখে গিয়েছিল। আমরা ক্ষমতায় এসে তা ১৬ হাজার ১৫০ মেগাওয়াটে উন্নীত করেছি। আশা করি দেশের মানুষ এটা স্মরণে রাখবে।

রবিবার সকালে গণভবনে এক ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। দেশের চারটি বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন এবং ১০টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক ই ইলাহি চৌধুরী, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, সৌদি আরব ও কুয়েতের রাষ্ট্রদূত এবং উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

যে চারটি বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন হয়েছে সেগুলো হলো- শিকলবাহা ২২৫ মেগাওয়াট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ১০০ মেগাওয়াট, সাল্লা ৪০০ কিলোওয়াট সৌরবিদ্যুৎ এবং সরিষাবাড়ী তিন মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র।

যে ১০টি এলাকা ইতোমধ্যে শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহের আওতায় আনা হয়েছে সেগুলো হলো- ফরিদপুর সদর, মাদারীপুরের রাজৈর, নওগাঁ সদর, সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, মাগুরার শালিখা, মেহেরপুর সদর, নেত্রকোণার মদন এবং নরসিংদীর বেলাবো।

দেশের বিভিন্ন এলাকায় শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পেরে খুশি প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, এটা বঙ্গবন্ধুর অন্যতম স্বপ্নের বাস্তবায়ন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে দেখলাম বিদ্যুতের রিজার্ভের পরিমাণ ১৫/১৬শ মেগাওয়াট মাত্র। তখন রাজধানীর অনেক এলাকাও ছিল অন্ধকারে। আমরা ক্ষমতায় এসে বেসরকারি উদ্যোগে বিদ্যুৎকেন্দ্র করার সুযোগ করে দিলাম, যাতে রিজার্ভের পরিমাণ দ্রুত বৃদ্ধি পায়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সেইবার পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকাকালে চার হাজার ৩০০ মেগাওয়াট রিজার্ভ রেখে গিয়েছিলাম। ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসতে পারিনি। নয় বছর পর ক্ষমতায় এসে দেখলাম আমাদের রেখে যাওয়া বিদ্যুতের পরিমাণ কমে তিন হাজার ২০০ মেগাওয়াট হয়েছে। বিএনপি সরকার বিদ্যুতের রিজার্ভ বৃদ্ধি তো করেইনি, বরং কমিয়েছে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি জানান, স্বাধীনতার পর মাত্র সাড়ে তিন বছর ক্ষমতায় ছিলেন বঙ্গবন্ধু। এ সময় তিনি দেশটাকে নতুন করে সাজানোর কাজে হাত দিয়েছিলেন। কিন্তু পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট ঘাতকরা তাকে সপরিবারে হত্যা করায় সেই স্বপ্ন আর বাস্তবায়ন হয়নি। ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ আবার স্বপ্ন পূরণে কাজ শুরু করে।

শেখ হাসিনা দাবি করেন, স্বাধীনতার পর ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ এবং ২০০১ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ক্ষমতার বাইরে ছিল। এই ২৯ বছরে দেশের কোনো উন্নতি হয়নি। জনগণের জীবন থেকে এই দীর্ঘ সময় ঝরে গেছে বলেও মনে করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শুধু বিদ্যুৎ নয়, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অবকাঠামো প্রতিটি ক্ষেত্রে এই সময়ে দেশ পিছিয়েছে। যারা ক্ষমতায় ছিল তারা নিজেরা আখের গুছিয়েছে। তারা বারবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়ে দেশকে পিছিয়ে দিয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী জানান, দেশের উন্নয়নের পূর্বশর্ত হচ্ছে বিদ্যুৎ। এজন্য তার সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিশেষভাবে মনোযোগ দিয়েছে। শুধু শহরে নয়, গ্রাম পর্যায়ে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে চেষ্টা করছে সরকার। তিনি বলেন, আমরা বিদ্যুৎকে বহুমুখী করেছি। সৌরবিদ্যুৎ, পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্প, কয়লাভিত্তিক ও তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করেছি। আমরা ভারত থেকেও বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছি।’