চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

বেহাত সম্পদের খোঁজে চসিক

প্রকাশ: ২০১৭-১০-১৮ ১৮:৫০:৫১ || আপডেট: ২০১৭-১০-১৮ ১৮:৫০:৫১

অবেশেষ বেদখল হতে যাওয়া সম্পদের খোঁজে মাঠে নেমেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) রাজস্ব বিভাগ। অভিযোগ আছে, চসিকের মোট ভূ-সম্পত্তির বাইরেও কিছু ভূ-সম্পত্তি বেদখল, কিছু মামলার জালে আটকা, কিছু তদারকির অভাবে পরিত্যক্তসহ নানাভাবে বেহাত হওয়ার পথে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মোট সম্পদের পরিমাণ ২৩৪ দশমিক ০৮০০ একর। এর মধ্যে অনেক সম্পত্তি বেদখল, পরিত্যক্ত ও বেহাতের পথে। বেদখল ভূমিতে তৈরি হয় স্থাপনাও।

যথা সময়ে আদালতে প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত সরবরাহ না করায় অনেক সম্পত্তি চসিকের হাতছাড়া হয়ে যায়। এবার চসিক ভূ-সম্পত্তি উদ্ধারে ওয়ার্ডভিত্তিক সম্পত্তির একটি তালিকা তৈরি করেছে। তালিকা মতে, প্রতিটি ওয়ার্ডের সম্পত্তিগুলোর মধ্যে কোনটির কী অবস্থা তা সরেজমিন পরিদর্শন করা হবে।

চসিকের রাজস্ব বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রণীত তালিকা অনুযায়ী চসিকের পাহাড়তলী ওয়ার্ডের সম্পত্তির পরিমাণ ১০ দশমিক ৭১ একর, জালালাবাদ ওয়ার্ডের ২১ দশমিক ৩৯৫ একর, পাঁচলাইশের ১ দশমিক ৮০২৫ একর, চান্দগাও ওয়ার্ডের ১০ দশমিক ৬৮ একর, মোহরা ওয়ার্ডের শূন্য দশমিক ৫১ একর, ষোলশহরের শূন্য দশমিক ১৫৮৫ একর, পশ্চিম ষোলশহরের ২ দশমিক ৪৩ একর, শুলকবহরের ৩০ দশমিক ০১ একর, উত্তর পাহাড়তলীতে ২৮ দশমিক ৮২৫ একর, উত্তর কাট্টলিতে শূন্য দশমিক ০৫ একর, দক্ষিণ কাট্টলিতে ১৮ একর, সরাইপাড়ায় ১ দশমিক ০৫ একর, পাহাড়তলীতে ৫ দশমিক ৩৮৭৭ একর, লালখান বাজারে ১০ দশমিক ৬৪৯৭ একর, বাগমনিরামে ৪ দশমিক ৭৫৩১ একর, চকবাজারে ৪ দশমিক ৯০৪৬ একর, পশ্চিম বাকলিয়ায় ১ দশমিক ৬৩২৬ একর, পূর্ব বাকলিয়ায় শূন্য দশমিক ৮৭০০ একর, দক্ষিণ বাকলিয়ায় ২ দশমিক ৫৫ একর, দেওয়ান বাজারে শূন্য দশমিক ৯৯০৮ একর, জামাল খানে ৩ দশমিক ৪৫৫৭, এনায়েত বাজারে ১ দশমিক ২৪৩১ একর, উত্তর পাঠানটুলিতে ৩ দশমিক ০৯৯৫ একর, উত্তর আগ্রাবাদে ৩ দশমিক ২০০০ একর, রামপুরায় শূন্য দশমিক ১৮০৩ একর, উত্তর হালিশহরে শূন্য দশমিক ৭৯২ একর, দক্ষিণ আগ্রাবাদে ১২ দশমিক ৮৩০৬ একর, পাঠানটুলিতে ১ দশমিক ১৭২৪ একর, পশ্চিম মাদারবাড়িতে ২ দশমিক ৯১৮৭ একর, পূর্ব মাদারবাড়িতে শূন্য দশমিক ৬৭৯৩ একর, আলকরণে ২ দশমিক ৩৭৪৯ একর, আন্দরকিল­ায় ৭ দশমিক ৫২৯৩ একর, ফিরিঙ্গি বাজারে ৩ দশমিক ৪২৮২ একর, পাথরঘাটায় ১ দশমিক ২৪০০ একর, বক্সির হাটে ৭ দশমিক ০৫৬৩ একর, গোসাইলডাঙ্গায় শূন্য দশমিক ৫৬২১ একর, উত্তর মধ্যম হালিশহরে ১৭ দশমিক ১০০ একর, দক্ষিণ মধ্যম হালিশহরে শূন্য দশমিক ৯১০০ একর, দক্ষিণ হালিশহরে শূন্য দশমিক ৮৭২৫ একর, উত্তর পতেঙ্গায় শূন্য দশমিক ৯৬০৯ একর, দক্ষিণ পতেঙ্গায় ১ দশমিক ৭৩০০ একর এবং নগরের বাইরে চসিকের ৭ দশমিক ০৮২৮ একর ভূমি আছে।

চসিকের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ড. মুহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমরা ৪১ ওয়ার্ডে চসিকের সম্পত্তি নিয়ে একটি তালিকা তৈরি করেছি। তালিকা অনুযায়ী সম্পত্তিগুলো আছে কি না তা সরেজমিনে গিয়ে যাচাই করব। পরিদর্শন শেষে আমরা বিস্তারিত একটি প্রতিবেদন তৈরি করব। এর পরই সম্পত্তিগুলো নিয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।’