ব্রেকিং নিউজ

web

অভিনব প্রতারণা !

আরফাত হোছাইন বিপ্লব

চট্টগ্রাম, ১৭ জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস):  মহানবী (স:)কে স্বপ্নদর্শন ও অন্যান্য পার্থিব কল্যাণের কথা বলে অভিনব প্রতারণার মাধ্যমে এক গৃহবধূর কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা । শুক্রবার ভোর সোয়া সাতটার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর চন্দনপুরা ভূইঁয়া গলির নিজ বাসার সামনে তিনি এ প্রতারণার শিকার হন। ক্ষতিগ্রস্থ গৃহবধূর গ্রামের বাড়ী লোহাগাড়া উপজেলার তেওয়ারী খীল গ্রামে। তার স্বামী একজন সরকারী কর্মকর্তা। ২০ বছরেরও বেশী সময় ধরে তাঁরা চাকুরির সুবাদে চন্দনপুরা এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন।

গৃহবধু, প্রতিদিনের মতো তিনি ফজরের নামাজের পর সকালের হাটাঁহাঁটি শেষে বাসার নিচে পৌছঁলে একজন অপরিচিত লোক তাকে সালাম দিয়ে বলেন ওই পাশে যিনি দাঁড়িয়ে আছেন তিনি কুতুবদিয়ার মালেক শাহ সাহেবের ছেলে। তার থেকে দোয়া নিন। এ সময় গৃহবধূ বিষয়টি এড়িয়ে যেতে চাইলে একপ্রকার অনুনয় বিনয় করে কয়েক হাত দূরে দাঁড়িয়ে থাকা দাড়িওয়ালা পাঞ্জাবি পরিহিত লোকের কাছে নিয়ে যান।

কাছে পেয়ে লোকটি ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয়ে জিজ্ঞেস করেন গৃহবধূকে। এ সময় মহানবী (স:) কে স্বপ্ন দেখা ও সব দিকে কল্যাণের কথা বলে মুখে মুখে কিছু মন্ত্রও পড়ান। মূলত: এরপর থেকেই গৃহবধূটি মানসিকভাবে দূর্বল হয়ে পড়েন। ফলে ওই লোকের সব নির্দেশনা অনুসরণ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে কুতুবদিয়ার মালেক শাহের ওরশের জন্য বাড়িতে থাকা স্বণালংকার ও নগদ টাকা কেউ না জানে মতো নিয়ে আসতে বলেন। যাওয়ার সময় সূরা ইখলাস পড়ে পড়ে যেতে বলেন। গৃহবধূ বাসায় গিয়ে সোয়া এক ভরি স্বর্ণালংকার ও কিছু নগদ টাকা এনে ওই প্রতারকের হাতে তুলে দেন। এরপর গৃহবধূকে সামনে ডানে হেটে এগিয়ে যেতে বলে। প্রতারক লোকটি আরো বলে, পিছনে না ফিরে ২৪১ পা গেলে একটি পাথর পাওয়া যাবে। সেটা হবে গায়েবী পাথর ! এর দ্বারা সব ধরনের অসূখ বিসুখ থেকে মুক্ত থাকতে পারবে বলেও উল্লেখ করে সে।

গৃহবধূটি কিছুদূর আগানোর পর তার সন্দেহ আসে যে তিনি প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। হঠাৎ ফিরে তাকিয়ে দেখেন পিছনে ওই লোকটি নেই।

গৃহবধূটি এই প্রতিবেদককে বলেন, ঘটনার শুরুর সময় ২ জন লোক থাকলেও স্বর্ণ নেয়ার সময় ছিল একজন। কিন্তু তখনো তার মনে হয়নি তিনি কেন এই সব কাজ করছেন। তিনি বলেন, আমি অনেকটা অসহায়ের মতো কাজগুলো করছিলাম। একধরনের আবছা বোধহীনতা আমার ভিতরে কাজ করছিল।

তার সরকারী কর্মকর্তা স্বামী বলেন, আমার স্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে যথেষ্ট সচেতণ ও বিচক্ষণ মহিলা। স্বাভাবিক অবস্থায় সে এমন প্রতারিত হতে পাওে বলে তিনি মনে করেন না। কোন অসাধু মন্ত্র ঠন্ত্রের মাধ্যমে তাকে হিতাহিত জ্ঞান শূন্য করে এ ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পাওে বলেও মনে করেন তিনি।

তার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া একমাত্র মেয়ে বলেন, ধর্মীয় রীতি নীতির অনুশীলনের ব্যাপারে মা সব সময় সতর্ক। পারত পক্ষে মাকে কখনো নামাজ ত্যাগ করতে দেখিনা। ব্যক্তি হিসেবেও মা যথেষ্ট সচেতন। অন্য কোন মানুষ যাতে এ ধরনের প্রতারণার শিকার না হন সে জন্য সকলের সতর্ক থাকা উচিৎ বলেও মনে করেন তিনি।

এ ঘটনার পর এই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ঘঁনা শুনে হতবাক হয়ে যাচ্ছেন আতœীয়রা। নানাজন নানাভাবে বিশ্লেষণ করছে ঘটনার।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

ad_visit_chittagong2

মতামত