টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সাতকানিয়ায় পুলিশের উপর হামলাকারী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ

শহীদুল ইসলাম বাবর
সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম, ১৩ জুলাই ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): সাতকানিয়া উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ উল্যাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর নদভী এমপি বলেন, গত ৭ জুলাই দক্ষিণ চরতীতে শিশু খুনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর হামলাকারীরা আবার নতুন করে সাতকানিয়ায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে চ্যালেঞ্জ করেছে। এ হামলায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। আর যুব ও ছাত্র সমাজকে ধ্বংস করে দেওয়ার মুল হাতিয়ার হচ্ছে মরণ নেশা ইয়াবা। সাতকানিয়ার কেরানীহাট, সাতকানিয়া সদর, দেওদিঘী, ঠাকুরদিঘী, জুট পুকুরিয়া বাজারসহ আরো বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় ইয়াবার বিস্তার ঘটছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। যুব ও ছাত্র সমাজকে রক্ষা ও অপরাধ প্রবনতা রোধ করতে অবশ্যই ইয়াবার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে হবে। উক্ত সভায় থানার অফিসার ইনচার্জ মো. রফিকুল হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দুরদানা ইয়াছমিন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবু তাহের, সোনাকানিয়ার চেয়ারম্যান হাজি নুর আহমদ, ছদাহার চেয়ারম্যান মোসাদ হোসেন চৌধুরী,ধর্মপুরের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী,সাতকানিয়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান নেজাম উদ্দিন, খাগরিয়ার চেয়ারম্যান আকতার হোসেন,পশ্চিম ঢেমশার চেয়ারম্যান আবু তাহের জিন্নাহ, মার্দাসার চেয়ারম্যান আ ন ম সেলিম, আমিলাইশের চেয়ারম্যান এইচ এম হানিফ, ঢেমশার চেয়ারম্যান রিদুয়ান উদ্দিন, কেওচিয়ার চেয়াম্যান মনির আহমদ,কাঞ্চনার চেয়ারম্যান রমজান আলী, বাজালিয়ার চেয়ারম্যান তাপস কান্তি দত্ত, পুরানগড়ের চেয়ারম্যান আ ফ ম মাহবুবুল আলম সিকদার, কালিয়াইশের চেয়ারম্যান হাফেজ আহমদ, নলুয়ার চেয়ারম্যান তসলিমা আক্তার ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রমিজ উদ্দিন আহমদ ছাড়াও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্য ও উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের বিভাগীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল হোসেন বলেন, সাতকানিয়ার ১৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার মধ্যে জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে বিচার প্রার্থী ও বিচারের বিবাদীকে মারধর ও লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এটির বিষয়ে মহামান্য হাইকোর্টের রুল জারি করা আছে যে, বিচার কিংবা ফতুয়ার নামে কাউকে মারধর কিংবা লাঞ্চিত করা যাবেনা। উচ্চ আদালতের আদেশের বিষয়ে সকলের সর্তক থাকা প্রয়োজন।

মতামত