টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ডে মৃত শিশুরা অপুষ্টিতে ভুগছিল

চট্টগ্রাম, ১৩ জুলাই ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):  চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ির দুর্গম ত্রিপুরা পাড়ায় অজ্ঞাত রোগে মৃত শিশুরা অপুষ্টিতে ভুগছিল বলে জানিয়েছেন রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ দল।

এ এলাকার যে শিশুরা চিকিৎসাধীন আছে, তারাও অপুষ্টিতে ভোগার পাশাপাশি সংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্ত।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জাতীয় রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ দল চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাট সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুদের দেখে এমন মন্তব্য করেছেন। বিশেষজ্ঞ দলের নেতৃত্ব দেন রোগতত্ব ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ডা. ফারুক আহমদ ভুঁইয়া।

দুপুরে ফারুক আহমদ ভুঁইয়া সাংবাদিকদের জানান, প্রাথমিকভাবে আক্রান্ত শিশুদের পর্যবেক্ষণ করে ধারণা করা হচ্ছে, মৃত শিশুরা মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছিল। ফৌজদারহাট হাসপাতালে শিশুদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা তাদের দেখেছেন। তবে মৃত্যুর কারণ ও রোগ শনাক্ত করতে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে।

টিমে থাকা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক এম এ ফয়েজ জানান, অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশুরা মারাত্মক অপুষ্টির সঙ্গে সংক্রমণের শিকার হয়েছে। যেসব রোগী বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে, চিকিৎসকরা সার্বক্ষণিক দেখার পর এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষা, পর্যবেক্ষণ করে দেখেছেন বেশিরভাগ রোগী পুষ্টিহীনতায় ভুগছে। তাদের রক্তশূন্যতা আছে। কিছু রোগীর লিভার বড় আছে। চামড়ায় দানা আছে। একটি-দুটি রোগীর ব্রেনের পর্দা সংক্রমণ বা মেনিনজাইটিস আছে। হামও আছে। সার্বিকভাবে দেখে মনে হচ্ছে এটি কোনো এক ধরনের সংক্রমণ। পুষ্টিহীনতার কারণে তাদের মধ্যে সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে।

এই চিকিৎসক বলেন, এ দেশে অনেক সংক্রামক রোগ আছে। যেগুলো দ্রুত একজনের কাছ থেকে আরেকজনে ছড়ায়। পাহাড়ে এক ধরনের রোগ আছে। টাইপাস আছে। হামও আছে। এই শিশুদের কী ধরনের সংক্রমণ হয়েছে, তা আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানা যাবে।

সীতাকুন্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি এলাকা ত্রিপুরা পাড়ায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয় নয়টি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তাদের প্রত্যেকের বয়স ৩ থেকে ১২ বছর। আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৪৬টি শিশু।

মতামত