টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ডে অজ্ঞাত রোগ: শনাক্ত হয়নি, রক্তের নমুনা ঢাকায়

চট্টগ্রাম, ১৩ জুলাই ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার দুর্গম ত্রিপুরা পাড়ায় জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৯ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় স্বাস্থ্য বিভাগে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

জ্বরের নেপথ্যে অজ্ঞাত রোগটি এখনো শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। ইতিমধ্যে এই রোগে আরো অন্তত অর্ধশত শিশু আক্রান্ত হয়েছে। ২৬ জনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আক্রান্তদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। রোগ আতঙ্কে সীতাকুণ্ডে তিনটি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের ছুটি বাতিল হয়েছে।

এদিকে,  বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) সকালে ফৌজদারহাটের সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে ভর্তি হওয়া শিশুদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করেন চার সদস্যের বিশেষজ্ঞ দলটি।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী জানান, ঢাকার আইসিডিআরবির প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তার নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ দল ফৌজদারহাট এসেছেন। এখান থেকে নমুনা সংগ্রহ করে তারা চমেক হাসপাতালে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ওই শিশুরা অপুষ্টির শিকার এটি চোখে দেখলেই বোঝা যায়। তবে প্রকৃত কারণ জানতে নমুনা পরীক্ষার ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

অপরদিকে স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ত্রিপুরা পাড়ায় ৫৭টি পরিবার বসবাস করে। গত শনিবার থেকে এই পাড়ায় আকস্মিকভাবে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে একের পর এক শিশু মারা যেতে থাকে। এর মধ্যে বুধবার একদিনেই মারা যায় ৪ শিশু। মারা যাওয়া শিশুদের মধ্যে যাদের নাম পাওয়া গেছে তারা হলো তাকিপাত ত্রিপুরা (১২), জানিয়া ত্রিপুরা (৫), প্রকাতি ত্রিপুরা (৬), রমাপতি ত্রিপুরা (৯), কানাইয়া ত্রিপুরা (২), রূপালী ত্রিপুরা (৩), কসমরাই ত্রিপুরা (৮), শিমুল ত্রিপুরা (২) ও হৃদয় ত্রিপুরা (৮)।

রূপালী ত্রিপুরার বাবা সুমন ত্রিপুরা জানান, তার মেয়ে প্রথমে জ্বরে আক্রান্ত হয়। আমরা এটিকে স্বাভাবিক জ্বর হিসেবেই ধরে নিয়েছিলাম। রূপালীর প্রথমে সর্দির মতো হয়। তারপর গায়ে ছোট ছোট গোটার মত দেখা যায়। এর পর একদিনের মধ্যে শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে সে মারা যায়। আক্রান্ত হওয়ার তিনদিনের মধ্যেই রূপালী মারা গেছে।

চট্টগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী আরো জানান, সীতাকুণ্ড উপজেলা এবং স্থানীয় সব কমিউনিটি ক্লিনিকের চিকিৎসক-নার্সদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের একাধিক টিম ত্রিপুরা পাড়ায় কাজ করছে। জ্বরে আক্রান্ত ২৬ শিশুকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোগটি শনাক্ত করা সম্ভব না হওয়ায় আক্রান্তদের রক্তের নমুনা ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে।

মতামত