টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির পুর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন পায়নি!

ছাত্রদল নেতাদের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে তীব্র বিরোধ

চট্টগ্রাম, ১০ জুলাই ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): বহু প্রত্যাশিত চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির পুর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন পায়নি।

তবে ২৮৫ জনের পূর্ণাঙ্গ তালিকাটি চট্টগ্রাম বিএনপির নেতারা দলের চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার হাতে জমা দিয়েছেন বলে দলীয় সুত্রে জানা গেছে। রবিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টায় বেগম জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদনের আশা নিয়ে বেগম জিয়ার সাথে দেখা করেন চট্টগ্রাম বিএনপির নেতারা। দীর্ঘ প্রায় ১ ঘন্টা নেতৃবৃন্দের সাথে সাংগঠনিক এবং চট্টগ্রামের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে খোলাখুলি আলোচনা করেন বেগম জিয়া।

সভায় অংশ নেয়া চট্টগ্রাম নগর বিএনপি নেতারা জানান, কমিটি পুর্ণাঙ্গ তালিকা নিয়ে চট্টগ্রাম সকল নেতারা ঐক্যমত আছেন কিনা বেগম জিয়া জানতে চান নেতাদের কাছে। এসময় সবাই ঐক্য আছেন জানালে তিনি জানান আমি দেখবো। দেখে কমিটির অনুমোদন দেবো। তবে কখন তিনি এ কমিটির অনুমোদন দেবেন তা নির্দিষ্ট করে বলেননি বলে জানান নেতারা।

এদিকে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে, গুলশানে যাওয়ার আগে রাতে বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা মো. শাহজাহানের বাসায় বৈঠক করেন চট্টগ্রামের নেতারা। সেখানে কমিটির তালিকা চুড়ান্ত করতে গিয়ে তুলুম বির্তকে জড়িয়ে পড়েন নেতারা। পূর্বে সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২৫১ জনের তালিকা করা হলেও তা বাড়তে বাড়তে করা হয় ২৮৫ জনে। এবং মহানগর ছাত্রদলের মূল দায়িত্বে থাকা সত্বেও কয়েকজনকে নগর বিএনপির কমিটির শীর্ষ পদে তালিকাভুক্ত করায় মূলত বিরোধ মৃষ্টি হয় বলে সুত্র জানায়।শেষ মুহুর্তে যুগ্ন সম্পাদক পদে নগর ছাত্রদলের সভাপতি গাজী সিরাজের নাম অর্ন্তরভূক্ত হওয়ায় মহানগরীর সকল নেতারা প্রতিবাদ করেন। এ নিয়ে মূলত মো. শাহজাহানের বাসায় তুলুম বির্তকে জড়িয়ে পড়েন নগর বিএনপির নেতারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আবু সুফিয়ান বলেন, পুর্ণাঙ্গ কমিটির চুড়ান্ত তালিকা ম্যাডামের হাতে দেয়া হয়েছে। ম্যাডাম তা দেখেছেন আমাদের সবার মতামত নিয়েছেন। তিনি আমাদের বলেছেন, শীঘ্রই তিনি এটি অনুমোদন করে দিবেন। আশা করছি দুই এক দিনের মধ্যে ঘোষণা আসবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৬ আগস্ট ডা. শাহাদাত হোসেনকে সভাপতি, আবু সুফিয়ানকে সিনিয়র সহ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে আবুল হাশেম বক্করের নাম ঘোষণা করে পরবর্তী একমাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার নির্দেশ দেয়া হয় কেন্দ্র থেকে। কিন্তু ১১ মাসেও সেই কমিটি করতে না পারায় নগর বিএনপি’র একটি বড় অংশের মাঝে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ তৈরি হয়। সেই ক্ষোভের মুখেই অবশেষে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে মনোযোগী হন দলের নগর বিএনপি’র শীর্ষ নেতৃত্ব।

মতামত