টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সৌদি শর্ত প্রত্যাখ্যান করলো কাতার

চট্টগ্রাম, ০২ জুলাই ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):  কাতারের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন চারটি আরব দেশ যে শর্ত বেঁধে দিয়েছিল তা প্রত্যাখ্যান করেছে দোহা। ইতালি সফররত কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মাদ বিন আব্দুলরহমান আল-থানি শনিবার রাতে এ ঘোষণা দেন।

রিয়াদ ও তার মিত্রদের পক্ষ থেকে দেয়া একটি শর্তও তার দেশ মানবে না জানিয়ে তিনি বলেন, শর্তগুলো প্রত্যাখ্যান করা হলো।

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সৌদি শর্ত প্রত্যাখ্যান করলেও বলেছেন, সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে তার দেশ আলোচনায় বসতে প্রস্তুত। তবে শনিবার সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-জুবায়ের এক টুইটার বার্তায় বলেন, দোহার প্রতি যেসব শর্ত বেঁধে দেয়া হয়েছে তা নিয়ে কোনো আলোচনা হবে না।

সন্ত্রাসবাদে মদদ দেয়ার অভিযোগ তুলে চলতি মাসের শুরুতে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ নয়টি দেশ কাতারের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে। সেই সঙ্গে কাতারের সব নাগরিকদের দেশ ছাড়ার নির্দেশও দেয়া হয়। অবশ্য, কাতার তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। এই সংকটে কাতারের পাশে দাঁড়িয়েছে ইরান ও তুরস্ক। ওই দুই দেশ কাতারে খাদ্য পাঠিয়েছে। এছাড়া, শক্তি প্রদর্শনের জন্য সেনা ও সামরিক যান পাঠিয়েছে তুরস্ক।

পরে কাতার সংকট সমাধানে ১৩টি শর্ত দেয় দোহার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা চারটি আরব দেশ। সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর ও বাহরাইনের পাঠানো এসব শর্তের মধ্যে আল-জাজিরা টেলিভিশন বন্ধ করে দেয়া এবং ইরানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক হ্রাসের কথাও আছে। এছাড়া, কাতারে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি বন্ধ এবং দেশটিতে অবস্থান করা ওই চার দেশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীদের হস্তান্তরের দাবিও জানানো হয়।

এসব শর্ত মেনে নেয়ার জন্য ১০ দিনের সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়। সেই সময়সীমা শেষ হওয়ার ৪৮ ঘন্টা আগে তা চূড়ান্তভাবে প্রত্যাখ্যান করলেন কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, প্রত্যেকের কাছে এটা পরিষ্কার, এই শর্তগুলোর লক্ষ্য কাতারের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করা, বাক স্বাধীনতা স্তব্ধ করে দেয়া এবং কাতারের কর্মকাণ্ডের ওপর নজরদারি স্থাপন করা।

শেখ মোহাম্মাদ বলেন, আমরা মনে করি, বিশ্ব কোনো আল্টিমেটামের মাধ্যমে পরিচালিত হয় না বরং এটি পরিচালিত হয় আন্তর্জাতিক আইনের মাধ্যমে। এই পৃথিবী পরিচালিত হয় এমন আইনের মাধ্যমে, যা বড় দেশগুলোকে ছোট দেশগুলোর ওপর আধিপত্য বিস্তার করতে বাধা দেয়। সূত্র: আল-জাজিরা ও পার্সটুডে

মতামত