টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সবাই যদি এমন হতো: মিরসরাইয়ে চেয়ারম্যান নয়নের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই থেকে 

চট্টগ্রাম, ১৯ জুন ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):  মিরসরাইয়ের করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন। প্রতি বছর রমজান মাসে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের জন্য ইফতারী ও মেজবানের আয়োজন করে থাকেন। তার ধারাবাহিকতায় এবারো আয়োজন করেছেন তিনি। তবে তার অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত মেহমানদের মধ্যমনি ৫ শতাধিক বিভিন্ন ধরনের শারীরিক প্রতিবন্ধি। করেরহাট ইউনিয়নের সুবিধা বঞ্চিত এসব মানুষের জন্য আলাদা আয়োজন করেছেন নয়ন। তাদের জন্য আলাদা প্যান্ডেল, আলাদা চেয়ার টেবিল, যাতে করে তাদের কোন সমস্যা না হয়। শনিবার (১৭ জুন) উপজেলার করেরহাট হাবিলদারবাসা রয়েল পার্ক কমিউনিটি সেন্টারে ইফতার ও মেজবান অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে গিয়ে দেখা গেছে, কমিউনটি সেন্টারের সামনে নিচে বিশাল প্যান্ডেল করা হয়েছে প্রতিবন্ধিদের জন্য। কারণ তারা দ্বিতীয় তলায় উঠতে পারবেনা।প্যান্ডেলের সামনে ‘করেরহাট ইউনিয়নের সুবিধা বঞ্চিত সম্মানিত মেহমানবৃন্দ’ লেখা ব্যানার টাঙ্গানো হয়েছে। ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত এইসব প্রতিবন্ধিরা দাওয়াত পেয়ে এখানে এসেছেন। চেয়ারম্যান নয়ন নিজেই তাদের তদারকি করছেন। এছাড়া ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন মাদ্রাসা ও এতিমখানার প্রায় ৫ শতাধিক ছোট শিশুকেও দাওয়াত দেয়া হয়েছে।

দাওয়াতে আসা দৃষ্টি প্রতিবন্ধি জাকির হোসেন বলেন, নয়ন চেয়ারম্যান প্রতি বছর রমজান মাসে আমাদের দাওয়াত খাওয়ান। শুধু তাই নয় প্রতিজন প্রতিবন্ধি ব্যক্তির যাতায়াত ভাড়া বাবদ ২শ টাকা করে দেন তিনি। দোয়া করি আল্লঅহ যেন তাকে আরো বড় করেন।

অলিনগর এলাকার বৃদ্ধ নুরুল গনি বলেন, অনেকে দাওয়াতে গিয়েছি। কিন্তু এমন ব্যতিক্রমী আয়োজন চোখে পড়েনি। সমাজের সুবিধা বঞ্চিত মানুষের জন্য এম উদ্যোগ সত্যি প্রশংসার দাবী রাখে। তার মত যতি সবাই সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের অবহেলা না করে ভালোবাসেন তাহলে আমাদের সমাজে অনেক পরিবর্তন হবে। মানুষের মধ্যে আর শ্রেণী-বৈষম্য থাকবেনা।

অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিল ও মেজবানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন রাশেদ, সদস্য খুরশিদ আলম আজাদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ আতাউর রহমান, বারইয়ারহাট পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন ভিপি, জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহিদুল কবির, করেরহাট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সুলতান গিয়াস উদ্দিন জসীম সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার প্রায় ৮ হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

এনায়েত হোসেন নয়ন জানান, আমরা প্রতিদিন কত ভালো খাবার খাচ্ছি। কিন্তু ওরা পাচ্ছেনা। তারা সমাজের সুবিধা বঞ্চিত মানুষ। তাদের কেউ খবর রাখেনা। তারা আমার ভাই, বন্ধু প্রতিবেশি। প্রতি বছর আমার আয়োজনে তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দাওয়াত করি। তাদের যাতায়াত ভাড়া বাবদ যাওয়ার সময় প্রতিজনকে ২শ টাকা করে দেয়া হয়। আমি যতদিন বেঁচে থাকবো তাদের নিয়ে এই আয়োজন অব্যাহত থাকবে।

মতামত