টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

‘মোরায়’ বাঁশখালীতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

চট্টগ্রাম, ৩০ মে ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):  ঘূর্ণিঝড় মোরার প্রভাবে চট্টগ্রামে ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টির দাপট; বাঁশখালীতে ঘরবাড়ি ও গাছপালা ভেঙে পড়ে হয়েছে ক্ষয়ক্ষতি।মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে ঘণ্টায় একশ কিলোমিটারের বেশি গতির বাতাস নিয়ে উপকূলরেখা অতিক্রম করা শুরু করে।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ চাহেল তস্তরী বলেন, উপজেলা সদর এবং ছনুয়া ইউনিয়নে ঘরবাড়ি এবং গাছপালা ভাঙার সংবাদ পেয়েছি।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, বাহারছড়া ইউনিয়ন, গন্ডামারা ও আলোকদিয়া এলাকায় ঝড়ো বাতাসে ঘরবাড়ি ও গাছপালার ক্ষতি হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম উপকূল অতিক্রম করলেও অন্য উপজেলাগুলো এবং নগরীতে কোথাও কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর মেলেনি।

পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস কর্মকর্তা মাহমুদুল আলম বলেন, ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম অতিক্রম করতে বেলা ২টা পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১২৬ কিলোমিটার পর্যন্ত।

এদিকে বৃষ্টিতে বন্দর নগরীর জিইসির মোড়, দুই নম্বর গেট এলাকাসহ কয়েকটি এলাকার সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। সড়কে যানবাহন চলাচল নেই বললেই চলে; পথচারীরা চলাচলও প্রায় বন্ধ।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে চট্টগ্রাম বন্দর ও শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের কার্যক্রম বন্ধ আছে।

মতামত