টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে বাস খাদে পড়ে নিহত ৭, আহত ৪০

এম মাঈন উদ্দিন
সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক 

চট্টগ্রাম, ২৯ মে ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): মিরসরাইয়ের বারইয়ারহাট-খাগড়াছড়ি সড়ক থেকে একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণহারিয়ে পাহাড়ের খাদে (কানালে) পড়ে ৭ জন নিহত ও কমপক্ষে ৪০ জন আহত হয়েছে। সোমবার (২৯ মে) দুপুর দেড়টায় বারইয়ারহাট-খাগড়াছড়ি সড়কের নয়টিলা মাজারের পূর্ব পার্শ্বে লোহারপুল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। মিরসরাই ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্ড, জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠায়। নিহতদের লাশ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাখা হয়েছে।

নিহতরা হলেন বাসের চালক মো.ইব্রাহীম (৪৫), মাটিরাঙ্গা উপজেলার চাইন্দং গ্রামের মোনায়েম সওদাগরের স্ত্রী রহিমা বেগম (৫০), করেরহাট ইউনিয়নের ছত্তুরুয়া গ্রামের ফরেষ্ট এলাকায় মো.নুরু ইসলাম প্রকাশ ইসমাইল (৫০), ফটিকছড়ি উপজেলার আন্দার মানিক বিট কর্মকর্তা আবু তালেব খান (৫০), মিরসরাইয়ের কয়লা বাজার এলাকার নুর নবী (১৮), ফটিকছড়ি উপজেলার হেঁয়াকো এলাকার কাঞ্চনতলার গ্রামের আব্দুল বারেকে ছেলে আলী আশরাফ (৫০)। এছাড়াও অজ্ঞাত একজন পুরুষ (৪০) চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলার গিয়াস উদ্দিনের ছেলে শাহাদাৎ (১২), সোহেলের ছেলে সোহাগ (৯), অজ্ঞাত পুরুষ (২২), আমীর আলীর ছেলে রমিজ (৭০), সীতাকুন্ড উপজেলার বাঁশবাড়ীয়া এলাকার শহীদ আহমদের ছেলে রাজু আহমেদ (৩৫), অজ্ঞাত পুরুষ (৪০) কে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) পাঠানো হয়েছে। আহতদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিকে ফুলগাজীর বেলাল হোসেন, কয়লার মুছা মিয়া, ফেনীর এলাহীবাদ এলাকার নজরুল, সামছু, কুমিল্লার কচুয়া এলাকার নাছির, ভাঙ্গনী এলাকার মুছা, ইউছুফ, শিশু শাহাদাত, নোয়াখালী এলাকার জহিরসহ ১০ জনকে কমপোর্ট হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে চমেক স্থানান্তর করা হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও জোরারগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বিপুল দেবনাথ ও মো. মুজাহিদ জানান, সোমবার দুপুরে ফেনী থেকে ছেড়ে আসা খাগড়াছড়িগামী আলিফ সুপারের যাত্রীবাহী একটি বাস (ঢাকা মেট্রো-চ ৯৬১৮) করেরহাট ইউনিয়নের লোহারপুল এলাকায় একটি বাঁক নেওয়ার সময় অপর দিক থেকে ছেড়ে আসা শান্তি পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসকে সাইড দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পাহাড়ের কানালে পড়ে যায়। যাত্রীবাহী বাসটি সড়ক থেকে প্রায় ১৫০ ফুট নিচে পড়ে যায়। এসময় তারা পাঁচ জনের লাশ উদ্ধার করেন। এছাড়া আহত কয়েকজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

মিরসরাই ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও সিভিল ডিফেন্সের লিডার আবু মোঃ শরিফ বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে গাড়ির ভেতরে চাপা পড়া দুইজনের লাশ উদ্ধার করি। আমরা যাওয়ার পূর্বে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করায়। যাত্রীবাহী বাসটি মহাসড়ক থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ১৫০ ফুট নীচে পড়ে যায় বলে তিনি যানান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার সাবরিনা ইসলাম বলেন, শাহাদাৎ (১২), সোহেলের ছেলে সোহাগ (৯), অজ্ঞাত পুরুষ (২২), আমীর আলীর ছেলে রমিজ (৭০), সীতাকুন্ড উপজেলার বাঁশবাড়ীয়া এলাকার শহীদ আহমদের ছেলে রাজু আহমেদ (৩৫), অজ্ঞাত পুরুষ (৪০) কে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) পাঠানো হয়েছে।

পৃথক দুর্ঘটনায় নিহত আরো দুই জন

এদিকে উপজেলার বারইয়ারহাট-খাগড়াছড়ি সড়কের হিঙ্গুলী ইউনিয়নের তালতলা এলাকায় পিকআপের ধাক্কায় সাইদুল ইসলাম রানা (১৮) নামের এক যুবক নিহত হয়। সে হিঙ্গুলী ইউনিয়নের আজমনগর গ্রামের সফর আলী মাজি বাড়ির নবী ড্রাইভারের ছেলে। এছাড়াও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বড় দারোগারহাটের উত্তর পার্শ্বে বেপরোয়া গতির গাড়ির ধাক্কায় অজ্ঞাত পুরুষ (৩৫) নিহত হয়। নিহতের লাশ উদ্ধার করে জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি চমেক মর্গে প্রেরণ করেছে।

মতামত