টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনের সংগ্রাম চলবে : প্রধানমন্ত্রী

চট্টগ্রাম, ২০ মে ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):  আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্য একটাই, সেটা হলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা। সাধারণ মানুষকে উন্নত জীবন দেয়া। সাধারণ মানুষের ভাগ্য যতদিন পরিবর্তন না হবে ততদিন আমাদের সংগ্রাম চলবে।

শনিবার সকালে গণভবনে অনুষ্ঠিত দলের বর্ধিত সভায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিলেন এ দেশের মানুষের কোনো অভাব থাকবে না। মানুষ পেট ভরে ভাত খাবে, ভালো কাপড় পরবে, লেখাপড়া করে শিক্ষিত হবে, সর্বোপরি উন্নত জীবন পাবে। বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন পুরণের লক্ষ্যেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ আশ্রয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে হাজারো মানুষের আবাসনের ব্যবস্থা করেছে। ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতিটি পরিবারকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার কাজ চলছে। একটি পরিবার যদি ২০০ টাকা জমাতে পারে তাহলে সরকার তাকে আরও ২০০ টাকা দিচ্ছে, যাতে তার ৪০০ টাকা সঞ্চয় হয়। যাতে তারা নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে।

তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ও মুক্তিযোদ্ধা ভাতা প্রদানের মাধ্যমে মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, নেতা হয়ে কী পেলাম কী পেলাম না, এটা ভাবা যাবে না। জাতিকে কী দিতে পারলাম সেটাই ভাবনার বিষয়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগকে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি বলে তারা তিনবার প্রধানমন্ত্রী ছিল, জাতীয় পার্টি বলে তারা এতদিন ক্ষমতায় ছিল। তারা ক্ষমতায় থাকার কথা বলে, তবে দেশ উন্নত হয়নি কেন? বিএনপি ক্ষমতায় এলে মুক্তিযুদ্ধ করাকে অপরাধ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে। আর তারা পাকিস্তানিদের তোষামোদ করে।

জনগণের কল্যাণে আওয়ামী লীগ সরকারের কর্মকাণ্ড তুলে ধরে দলের নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত আট বছরে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এমনভাবে জনসাধারণের মাঝে তুলে ধরুন, যেন তারা আমাদের প্রতি আস্থা রেখে আবার ভোট দেয়।

শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সকাল সাড়ে ১০টায় এ সভা শুরু হয়। সভায় সারাদেশ থেকে অাসা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, তথ্য গবেষণা ও দফতর সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম কার্যনির্বাহী কমিটি, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্যরাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মতামত