টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে মিথ্যা অভিযোগের অপমানে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

চট্টগ্রাম, ০৯ মে ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: ফটিকছড়ি উপজেলায় মিথ্যা অভিযোগের অপমান সহ্য করতে না পেরে এক কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার রাত এগারোটার দিকে উপজেলা সদরের বিবিরহাট বাজারের মাষ্টার কলোনির বখতিয়ারের ভাড়া বাসা থেকে ওই ছাত্রীর গলায় ওড়না পেছানো অবস্থায় ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। নিহতের নাম-ফাতেমা আকতার (১৮)। তিনি ফটিকছড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজের এইচ.এস.সি প্রথম বর্ষের ব্যবসায় শিক্ষা শাখার শিক্ষার্থী।

ফাতেমা মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার বহেরাতলা গ্রামের নুর মুহাম্মদ ফরাজীর কন্যা। তার বড় ভাইয়ের চাকরি সূত্রে ফটিকছড়িতে গত এক বছর ধরে বসবাস করে আসছেন।

নিহতের বড় ভাই মো. শাহীন অভিযোগ করে বলেন, ‘সোমবার সকালে বিবিরহাট বাজারের মীর জাহানারা শপিং কমপ্লেক্স এর আরেফা ওড়না হাউস এন্ড বুটিকস নামক একটি প্রতিষ্ঠান থেকে কয়েকজন বিক্রয়কর্মীকে আমার বাসায় পাঠান প্রতিষ্ঠানটির মালিক লিয়াকত। তারা আমার বাসায় এসে তাদের দোকান থেকে আমার বোন বাকিতে সাত হাজার টাকার কাপড় ক্রয় করেছে এবং সে টাকা পরিশোধ করার জন্য বলে যান। কিন্তু আমার ছোট বোন কোন প্রকার বাকিতে কাপড় করেনি, বরং যেটুকু ক্রয় করেছে তা নগদে ক্রয় করেছে বলে দাবী করে। এমনকি যে কাপড়গুলো ক্রয় করেছে বলেছে তাও বাসায় খোঁজে পেলাম না। আমার বোন আমার হাত ছুয়ে বলেছে, সে কোথাও কোন বাকিতে কাপড় ক্রয় করেনি। বিকালে পূনরায় প্রতিষ্ঠানের মালিক নিজেই বাসায় এসে বাকিতে কাপড় ক্রয় করার আবারো দাবী করেন। এতে আমার বোন খুব অপমানবোধ করে।

তারপরও এ নিয়ে আমি দোকানদারের সাথে সন্ধ্যায় তার প্রতিষ্ঠানে গিয়ে তার দাবীকৃত টাকা আগামী ১৫ তারিখ পরিশোধ করে দেব বলে জানায়। কিন্তু রাতে বাসায় গিয়ে দেখি আমার বোন আত্মহত্যা করেছে। আমার বোন আত্মহত্যার পেছনে যাদের প্ররোচনায় ছিল তাদের বিচার দাবী করছি।

এদিকে এ ব্যাপারে আরেফা ওড়না হাউস এন্ড বুটিকস এর মালিক লিয়াকত এর বক্তব্যের মধ্যে রহস্য পাওয়া যায়। তার বক্তব্য, বাকিতে কাপড় ক্রয়কারী ছাত্রীটির মুখমন্ডল কাপড় দিয়ে ঢাকা ছিল। তার নাম বলেছিল প্রিয়া ও বাবার নাম পলাশ। তবে, তিনি দাবী করেন বাকি দেওয়ার দিন ছাত্রীটির অগোচরে তার বাসা চিহ্নিত করে রেখেছিল তাদের এক বিক্রয় কর্মী।

ফটিকছড়ি থানার এস.আই আরিফ উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ছয় ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মতামত