টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে বিএনপির বর্ধিতসভা পন্ড

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

চট্টগ্রাম, ০৬ মে ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: ফটিকছড়ি উপজেলা বিএনপির মধ্যে দু‘টি পক্ষের মুখোমুখি অবস্থান নিলে পুলিশ বর্ধিত সভা বন্ধ করতে বাধ্য করে। এতে ফটিকছড়িতে বিএনপির পূর্ব নির্ধারিত বর্ধিত সভা পন্ড হয়েছে। তবে, বর্ধিত সভা আহবান কারীদের দাবী পন্ড নয়, সংক্ষিপ্ত করে শেষ করে দেওয়া হয়েছে ।

জানা যায়, আজ (শনিবার) বিকাল তিনটায় উপজেলা সদরের এশিয়া প্লাজাস্থ দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপির একাংশের আহবায়ক আলহাজ্ব ছালাউদ্দিন ও সদস্য সচিব এইচ এম নাছির উদ্দিনের এর পক্ষের নেতারা বর্ধিত সভা আহবান করেন। যেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি নেতা ড.খোরশিদ জামিল।

বিকাল চারটার দিকে প্রধান অতিথি দলীয় কার্যালয়ে এসে উপস্থিত হলে এমন সময় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির একটি পক্ষ মিছিল দিতে থাকে। যেখানে মিছিলের নেতৃত্বে দেখা যায় সুন্দরপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা শহীদুল আজম। মিছিলকারীরা এক পর্যায়ে কার্যালয়ের ভেতর প্রবেশ করার চেষ্টা করে। এতে উভয়ের মধ্যে মুখোমুখি অবস্থান দেখে ফটিকছড়ি থানা হতে একাধিক পুলিশ এসে উভয়পক্ষকে বাধা দেন। এক পর্যায়ে কার্যালয়ের ভেতরে থাকা নেতাকর্মীদের বর্ধিতসভা বন্ধ করতে বাধ্য করে থানা পুলিশ।

মিছিলের নেতৃত্বে থাকা সুন্দরপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা শহীদুল আজম বলেন, ‘ফটিকছড়ির বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতা বিচারপতি ফয়সাল মাহমুদ ফয়েজী, কর্ণেল আজিম উল­াহ বাহার, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জহির আজম চৌধুরীকে বাদ দিয়ে এ বর্ধিতসভা করা হচ্ছিল, তাই আমরা তৃণমূলের নেতাকর্মীরা প্রতিবাদ করেছি।’

উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আলহাজ্ব ছালাউদ্দিন বলেন, ‘আমি ও সদস্য সচিব সকলকে বর্ধিত সভায় দাওয়াত দিয়েছি। কেউ না আসলে আমার কি করার আছে। আর আজম কে ? সে কখনো জামায়াত, কখনো বিএনপি । প্রকৃত অর্থে সে তো দালাল !

পুলিশের বাধা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি পূর্বেই প্রশাসনকে জানিয়ে সভা আহবান করেছি। হঠাৎ কেন তাদের এমন আচরণ বুঝলাম না।’

সদস্য সচিব এইচ এম নাছির উদ্দিন বলেন, ‘আমরা পুলিশের বাধায় বর্ধিত সভা সংক্ষিপ্ত করে শেষ করে দিয়েছি। যেখানে উপস্থিত ছিলেন, বিভিন্ন ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা বিএনপির কমিটির নেতৃবৃন্দ। এছাড়া অঙ্গসংঘটনের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। সভায় আসন্ন রমজানে ইফতার মাহফিল আয়োজন ও সুন্দরপুর ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি-সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা করা হয়।’

ফটিকছড়ি থানার ওসির অবর্তমানে চার্জে থাকা এস.আই ইরফান উদ্দিন রাজিব বর্ধিত সভায় বাধা প্রসঙ্গে বলেন, সেখানে মূলত তাদের দু‘টি গ্রুপ মুখোমুখি হয়ে আইনশৃঙ্খলা বিগ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিলে উর্র্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমরা সভা বন্ধ করার নির্দেশ দিই। এছাড়া তাদেরকে পূর্বে সভা করার কোন প্রকার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

উলে­খ্য, ফটিকছড়ি উপজেলায় বিএনপির দু‘টি কমিটি রয়েছে। একটির আহবায়ক আলহাজ্ব ছালাউদ্দিন এবং অপরটির আহবায়ক সরোয়ার আলমগীর।

মতামত