টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

আশার আলো দেখছেন সাতকানিয়ার দ্বীপ চরতীবাসী

ভাঙ্গন পরির্দশনে আসছেন এমপিসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা

শহীদুল ইসলাম বাবর
বিশেষ প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ০৪ মে ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: তীব্র আকার ধারণ করা নদী ভাঙ্গনে সহায় সম্বল হারিয়ে অনেকটা নিঃশ্ব হয়ে পড়া দক্ষিন চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার চরতী ইউনিয়নের দ্বীপ চরতীবাসী নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। ভাঙ্গনরোধে আশায় আলো পুস্পটিত হওয়ায় নতুন করে আশায় বুক বাধঁছে তারা। আজ দ্বীপ চরতীসহ আশ-পাশ এলাকার নদী ভাঙ্গন সরেজমিন পরির্দশন করতে আসছে সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী, পানি উন্নয়ন বোর্ড়ের প্রধান প্রকৌশলীসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সংশ্লিষ্ট সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সাতকানিয়া উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ঐ এলাকার বাসিন্দা রমিজ উদ্দিন আহমদ জানান, বেশ কয়েক বছর থেকে শুরু হওয়া ভাঙ্গনে উক্ত গ্রামের অন্তত ৩টি কবরস্থান, ১টি ঐতহ্যবাহি মসজিদ, ১টি দাখিল মাদ্রাসা, ১টি মাজার ও শত শত একর ফসলী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙ্গনরোধে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে বার বার চেষ্টা তদবির করে আসছি।

একই এলাকার তরুন আইনজীবি দেলোয়ার হোসেন জানান, ৭০ লক্ষ টাকা খরচ করে নির্মিত করা হয়েছিল দ্বীপ চরতী দক্ষিন পাড়া শাহি জামে মসজিদ, আর স্থানীয়দের সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল দ্বীপ চরতী দারুল ইসলাম দাখিল মাদ্রাসা ও ছিদ্দিকিয়া (র.) এতিমখানা। গত কয়েক বছর থেকে শুরু হওয়া ভাঙ্গনের ফলে এসব স্থাপনার সবটুকুই নদীতে হারিয়েছে গেছে। মসজিদ ও মাদ্রাসার জন্য এ বৎসর সরকারী কোন সহায়তা না পেলেও উক্ত এলাকার হতদরিদ্র জনগোষ্টি নিজেদের প্রচেষ্টায় দারুল ইসলাম দাখির মাদ্রাসার কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে অন্যত্রে অস্থায়ী ভাবে কয়েকটি ক্লাশ রুম তৈরী করেছে। ঐ এলাকার আবু শামা, নুরুচ্ছফা, আব্দু শুক্কুর, ছকিনা খাতুন,মনজিরা বেগম,মোহাম্মদ ইউনুছ, মো. সৈয়দ, মোহাম্মদ আলী, মো. নোমান, মোহাম্মদ সোলেমান,মনোয়ারা বেগম,জাফর আহমদ, আবু বকর,মফিজুর রহমান, সমসের আলম, মোতাহেরা বেগম, কবির আহমদ, মৃত জাগির হোসেন,মোজাম্মেদল হক, মাঈনুদ্দিন,মৃত ইউফুপ আলী,মোহাম্মদ হোসেন, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, ফয়েজ আহমদ,মুর্শিদ আহমদ, হাছন বানু,জুহুরা বেগম ও নুরুল আলম তাদের বসত ঘর হারিয়ে অনেকটা নি:শ্ব অবস্থতায় দিনাতিপাত করছে।

সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ উল্যাহ বলেন, দ্বীপ চরতী নদী ভাঙ্গনের বিষয়ে আমি সরেজমিন পরির্দশন করে উর্ধ্বতন মহলের কাছে লিখিত ভাবে জানিয়েছে।

সরকারী একটি সূত্র জানায়, স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর প্রচেষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয় হতে ভাঙ্গনরোধ কল্পে ৫শ ৭০ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। এ বিশাল অর্থ,সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার শঙ্খ, ডলু, হাঙ্গর ও টঙ্কাবতি খালের ভাঙ্গন রোধে ব্যায় করা হবে। আর এসব নদ-নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা চিহ্নত করে প্রকল্প গ্রহনের জন্যই মূলত এমপিসহ পানি উন্নয়ন বোর্ড়ে শীর্ষ কর্মকর্তারা ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরির্দশনে আসছেন। এ বিষয়ে সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দীন নদভী বলেন, আমি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার উন্নয়নের জন্য ব্যাপক বরাদ্ধ দিয়েছেন। তারই আন্তরিকতার কারনে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার নদী ভাঙ্গনরোধের জন্য প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে নদী ভাঙ্গনে নি:শ্ব হবেনা কোন মানুষ।

মতামত