টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

নাছিরকে কাছে ডেকে কথা বললেন মহিউদ্দিন

ইব্রাহিম খলিল
প্রধান প্রতিবেদক, সিটিজি টাইমস ডটকম

চট্টগ্রাম, ১৭ এপ্রিল ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: সপ্তাহজুড়ে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন চৌধুরীকে খুনী, লুঠেরাসহ নানা বিষোদগার করে শেষ পর্যন্ত ‘নাছির ভাই’ সম্বোধন করে কাছে ডেকে কথা বললেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী।

আজ ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে নগরীর শহীদ মিনার চত্বরে আয়োজিত সভায় এমন সম্বোধনে কপালে চোখ তুলেন অনেকে। কেউ কেউ এ নিয়ে না মুখরোচক আলোচনা ও টিপ্পনি কাটলেও দলের শুভাকাঙ্খিরা খুশিই হয়েছেন এতে।

যাদের অনেকে বছরের পর বছর নানারকম মন্তব্য ও গরম কথা বলে প্রতিনিয়ত দলকে বিব্রতকর অবস্থায় রাখার জন্য এই দুই নেতার দিকেই আঙ্গুল তুলেন।

সম্প্রতি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও সাবেক গণপরিষদ সদস্য মো. ইসহাক মিয়া বলেছেন, দল ক্ষমতায় আসার পর থেকে নানা অপকর্মের কারনে বিএনপিসহ সবকটি রাজনৈতিক দল কোণঠাসা হয়ে পড়লেও আ জ ম নাছিরের পেছনে পুরো বিএনপির ভুমিকায় লেগে আছেন এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। যা মোটেও কাম্য নয়। এ নিয়ে আওয়ামী লীগ বিব্রত।

সম্প্রতি লালদীঘির ময়দানে জনসভায় আ জ ম নাছিরকে খুনী, লুঠেরাসহ নানা গরম কথা বলে চট্টগ্রামকে অগ্নিগর্ভ করে তুলেন এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। মেয়র আ জ ম নাছিরও একদিনের গরম কথায় জ্বলছে এখনো। যা মেয়র হিসেবে এমন প্রতিক্রিয়া দেখানো উচিত নয়। এ নিয়ে দুই অনুসারী, যুবলীগ-ছাত্রলীগসহ অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝেও উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে।

ইসহাক মিয়া জানান, ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে নগরীর শহীদ মিনার চত্বরে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এটি ছিল দলীয় কর্মসূচি। এতে দুই নেতা একইমঞ্চে মুখোমুখি নিয়েও উত্তেজনা চলছিল। কিন্তু দেখা গেল আ জ ম নাছিরকে সভায় “নাছির ভাই’ সম্বোধন করে কাছে ডেকে নে এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। নাছিরও সাড়া দিয়ে পূরো সম্মানের সহিত কুশল বিনিময় করেছেন। এতে পুরো সভায় শীতলতা নেমে আসে।

আওয়ামী লীগের প্রবীণ এই নেতা বলেন, এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী আজ যা করেছেন তা সম্পূর্ণ বড় ভাই ও গুরুর ভুমিকা পালন করেছেন। আমরা চাই তিনি এ ভুমিকা রেখে যাবেন।

এদিকে মঞ্চে বক্তব্যে উঠে মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে আমার কথা কাটাকাটি হতে পারে, কিন্তু তা কোনোভাবেই যুদ্ধ নয়। আমি কিছু গরম কথা বলেছি। মাঝে মাঝে গরম কথা বলতে হয়। গরম কথা কী জন্য বলেছি তা আরেকদিন বলবো।”

এসময় মহিউদ্দিন চৌধুরী তাদের মধ্যে যাতে কোনো ধরনের ফাটল না ধরে সে জন্য সাংবাদিকদের কাছ থেকে ইতিবাচক লেখনি ও সহযোগিতা আশা করেন।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর আগে বক্তৃতা দিতে উঠে আ জ ম নাছির সা¤প্রতিক বিবাদ ইস্যুতে কোনো কথা বলেননি। পুরো বক্তৃতায় তিনি মুজিবনগর দিবসের তাৎপর্য ও জঙ্গিবাদ নিয়ে কথা বলেন। এমনকি বক্তৃতার শুরুতে এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে সংগ্রামী সভাপতি বলে অ্যাড্রেস করতেও ভুল করেননি নাছির।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত