টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বর্ষবরণে প্রস্তুত চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম, ১৩ এপ্রিল ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: বছরের শেষ দিন আজ চৈত্র সংক্রান্তির আনুষ্ঠানিকতা প্রায় শেষ। বাংলা সনের শেষ দিনটি মনে করিয়ে দিচ্ছে, নতুন বছর দোরগোড়ায়। আবহমান কাল থেকেই পান্তা ইলিশ, হালখাতা, মেলাসহ নানা অনুষঙ্গের মধ্য দিয়ে বাঙালি উদযাপন করে আসছে পয়লা বৈশাখ। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল বাঙালি ভেদাভেদ ভুলে এদিন মেতে ওঠে আনন্দে।

আর মাত্র ক্ষণকালের অপেক্ষা। বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে বন্দরনগরীতে চলছে সাজসাজ রব। উৎসব আয়োজনের সব প্রস্তুতি এখন শেষ পর্যায়ে। নববর্ষকে স্বাগত জানাতে শুক্রবার নগরীতে দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠান আয়োজন করছে বিভিন্ন সংগঠন ।

সম্মিলিত পয়লা বৈশাখ উদযাপন পরিষদ, ডিসিহিল পহেলা বৈশাখ বাঙালির উৎসব, সবার যোগে জয়যুক্ত হোক -এই শিরোনামে নগরীর ডিসিহিলের নজরুল স্কয়ারে শুক্রবার ভোর ছয়টায় উস্তাদ স্বর্ণময় চক্রবর্তীর বিলাসখানী তোড়ী রাগ পরিবেশনার মধ্য দিয়ে নববর্ষের অনুষ্ঠানমালার প্রথম অধিবেশন শুরু হবে।

সকালে পর্যায়ক্রমে সঙ্গীত ভবন, জয়ন্তী, ছন্দানন্দ সাংস্কৃতিক পরিষদ, গুরুকূল সঙ্গীত একাডেমি, সুর-সাধনা সঙ্গীতালয়, গীতধ্বনি, ইমন কল্যাণ সঙ্গীত বিদ্যাপীঠ, সৃজামি সাংস্কৃতিক অঙ্গন, নটরাজ নৃত্যাঙ্গন একাডেমি, স্কুল অব ওরিয়েন্টাল ডান্স, ওড়িশী অ্যান্ড টেগোর ডান্স মুভমেন্ট সেন্টার, নৃত্যম একাডেমি, ঘুঙুর নৃত্যকলা কেন্দ্র, সঞ্চারী নৃত্যকলা একাডেমি, নৃত্য নিকেতন, দি স্কুল অব ফোক ডান্স, বোধন আবৃত্তি পরিষদ, প্রমা আবৃত্তি সংগঠন, স্বরনন্দন প্রমিত বাংলা চর্চাকেন্দ্র ও বিভাস আবৃত্তি চর্চাকেন্দ্র সংগঠনের সাংস্কৃতিক পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হবে।

একক সঙ্গীত পরিবেশনায় থাকবেন-অপু বর্মণ, প্রদীপ দাশ, গায়ত্রী চৌধুরী, হেলাল উদ্দিন, শান্তনু দাশ, লাকী দাশ, লুপর্ণা মুৎসুদ্দি, মিথুন চক্রবর্ত্তী, প্রীতম ভট্টাচার্য্য ও অনিন্দিতা সেনগুপ্তা। দ্বৈত সঙ্গীত পরিবেশন করবেন প্রেমসুন্দর বৈষ্ণব ও নীলিমা।

দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হবে বিকাল আড়াইটায়। এ অধিবেশনে রাগেশ্রী, সুন্দরম শিল্পী গোষ্ঠী, উপমা সাংস্কৃতিক অংগন, বংশী শিল্পকলা একাডেমি, ফতেয়াবাদ সঙ্গীত নিকেতন, শহীদ মিলন সঙ্গীত বিদ্যালয়, বাণী মঞ্জুরী ললিতকলা একাডেমি, সপ্তডিঙ্গা শিল্পাঙ্গন, সপ্তসুর বিদ্যানিকেতন, মনোরমা নৃত্যাঙ্গন, অপ্সরী ডান্স একাডেমি, উদিত নৃত্য একাডেমি ও নরেন আবৃত্তি একাডেমি সংগঠনের শিল্পীরা সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশগ্রহণ করবে।

নববর্ষ উদযাপন পরিষদ, সিআরবি শিরীষতলা সকাল সাতটায় দলীয় পরিবেশনার মধ্য দিয়ে নববর্ষের অনুষ্ঠান শুরু হবে। অংশগ্রহণ করবে ভায়োলিনিস্ট চিটাগং, সঙ্গীত ভবন, উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদ, বোধন আবৃত্তি স্কুল, অবকাশ ধারা শিল্পী সংস’া, সুন্দরম শিল্পীগোষ্ঠী, খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগর, প্রমা আবৃত্তি সংগঠন, চারুতা নৃত্যকলা একাডেমী, উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জ, শ্যামা নৃত্যাঙ্গন, নৃত্যনন্দন, চট্টল কুঁড়ি, নির্মাণ আবৃত্তি অঙ্গন, শাশ্বত ললিতকলা একাডেমি, গোধুলী সঙ্গীত একাডেমি, নিক্কন একাডেমি, নৃত্য নিকেতন, সাধনা সঙ্গীত একাডেমি, আওয়ামী শিল্পীগোষ্ঠী, তারুণ্যের উচ্ছ্বাস, শব্দনোঙর, ছন্দানন্দ সাংস্কৃতিক পরিষদ, সুর সাধনা সঙ্গীতালয়, স্লোগান সাংস্কৃতিক স্কোয়াড, সপ্তস্বর সঙ্গীত বিদ্যালয়, সৃজামি।

এরপর দুপুর দেড়টায় দলীয় নৃত্য করবে ঘুঙুর নৃত্যকলা একাডেমি, সঞ্চারী নৃত্যকলাম। বাউল সঙ্গীত পরিবেশন করবেন রাজ্জাক সাঁই ও তার দল। একক সঙ্গীত করবেন মোহাম্মদ হোসেন, শংকর দে, পাপড়ি ভট্টাচার্য্য, পলি শারমিন, শিমুল শীল, সনজিত আচার্য্য, শর্মিষ্ঠা চৌধুরী।

বিকাল তিনটায় অনুষ্ঠিত হবে সাহাবুদ্দিনের বলী খেলা। বিকাল পাঁচটায় জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যদিয়ে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষিত হবে। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, শিল্পকলা একাডেমিতে সকাল নয়টায় মঙ্গল শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে শুরু হবে বর্ষবরণের আয়োজন।

সার্কিট হাউস থেকে শুরু হয়ে শিল্পকলায় এসে শেষ হবে শোভাযাত্রাটি। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনার পাশাপাশি বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে থাকবে পান্তা ভাতা। ইলিশে নিষেধাজ্ঞা থাকায় পান্তার সঙ্গে বিভিন্ন প্রকারের ভর্তার আয়োজন থাকবে শিল্পকলায়।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা ইনস্টিটিউট নগরীর বাদশা মিঞা চৌধুরী রোডে অবস্থিত ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গণে সকাল আটটায় ঢাকঢোল বাদনের মাধ্যমে শুরু হবে পয়লা বৈশাখের অনুষ্ঠান। এরপর পর্যায়ক্রমে থাকবে মঙ্গল শোভাযাত্রা, মেলা, গ্রামীণ খেলাধুলা, গান, নাট্য পরিবেশনা ও আব্দুর রহমান বাউলের পরিবেশনা।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে প্রথমবারের মতো বৈশাখ ও লোকজ উৎসব সকাল নয়টা থেকে বহদ্দারহাটস্থ স্বাধীনতা পার্কে অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এতে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং কাউন্সিলরবৃন্দ গান, আবৃত্তি ও নৃত্যে অংশগ্রহণ করবেন। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) দুই দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে চুয়েটের পক্ষ থেকে।

প্রাণের বন্ধনে বৈশাখ শীর্ষক বর্ষবরণ অনুষ্ঠানমালায় থাকছে বৈশাখী শোভাযাত্রা, বাউল উৎসব, শিশু-কিশোরদের অনুষ্ঠান, ঘুড়ি উৎসব, বৈশাখের আলোচনা, লটারি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং লোক সঙ্গীতের অনুষ্ঠান। পয়লা বৈশাখের প্রথম প্রহরে সকাল সাড়ে সাতটায় চুয়েট গোলচত্বর থেকে শোভাযাত্রার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে।

প্রধান অতিথি থেকে উৎসবের উদ্বোধন করবেন উপচার্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি থাকবেন চুয়েটের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী এবং সভাপতিত্ব করবেন স্টাফ ওয়েলফেয়ারের সভাপতি আব্দুর রশীদ।

মতামত