টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জাবেদের উপর হামলার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী, বিচারের দাবীতে মানববন্ধন

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

চট্টগ্রাম, ০৯ মার্চ ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): ক্রিকেট খেলার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র নাজিরহাটে প্রকাশ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র জাবেদকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী ও তার বন্ধুমহল। ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার ও জড়িত সকল আসামীকে গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসার দাবীতে মানববন্ধন করা হয়। বৃহস্পতিবার (আজ) সকালে ফটিকছড়ি উপজেলার নাজিরহাট ঝংকার মোড়ে চত্বর, পরে ঘটনাস্থল নাজিরহাট কলেজ রোডের কালাপুল এলাকায়ও পৃথকভাবে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় আজম ক্লাবের সভাপতি মনিরুল আহসান। মানববন্ধনে উপস্থিত হয়ে সংহতি প্রকাশ করেন ফটিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান এম. তৌহিদুল আলম বাবু।


তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসীরা কোন দলের হতে পারে না। তাদের পরিচয় সন্ত্রাসী। নাজিরহাট এলাকায় কোন সন্ত্রাসী কিংবা অরাজকতাকারীর স্থান নেই। অপরাধী যারাই হোক তাদের আইনের আওতায় নিয়ে এসে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে।’

এ সময় তিনি জাবেদের চিকিৎসার জন্য ব্যক্তিগত তহবিল থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদানের ঘোষণা দেন।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে জাবেদের পিতা মোহাম্মদ হোসেন বলেন,‘ এ জঘন্যতম হত্যাচেষ্টা বর্বরতাকে হার মানায়। নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার মধ্য দিয়ে তারা আমার ছেলেকে কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছিল। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করছি।’

মানবন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে সংহতি প্রকাশ করেন, নাজিরহাট পৌরছাত্রলীগের সভাপতি রাসেল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আমান উল­াহ আমান, ফটিকছড়ি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি জামাল উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাজ্জাদ, নানুপুর লায়লা কবির ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ মো.লিমন, রোসাংগিরী ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রনেতা মুন্না, ছাত্রদলনেতা আরফাত তুষার, ফটিকছড়ি পৌর যুবলীগ নেতা সোহেল চৌধুরী, সুন্দুরপুর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এমদাদ প্রমুখ।

এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বিচারের দাবীতে মানবন্ধনে অংশ নিয়ে সংহতি প্রকাশ করেন।

উলে­খ্য, কিক্রেট খেলায় বাকবিতান্ডার জেরে গত সোমবার রাত আটটায় নাজিরহাট বাজারের পশ্চিমকুলের কলেজ রোডে কালাপুল নামক স্থানে নাজিরহাট পৌরসভাধীন কুম্ভারপাড়া এলাকার দায়েম চৌধুরীর বাড়ির শাহাজানের পুত্র আরফাজ (২৫) তার সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে বাবুনগর আজম ক্লাব এলাকার জাবেদের উপর রাম দা দিয়ে উপর্যোপুরী কুপায়। এতে জাবেদ গুরুতর আহত হন, তার সাথে থাকা রায়হান নামক তার এক বন্ধুও ঘটনায় আহত হন। গুরুতর আহত জাবেদ রাজধানীর এ্যাপলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অপরদিকে হামলাকারী আরফাজ ও এনামকে গণুপিটুনির পর পুলিশ নিয়ে যায়। ঘটনায় হাটহাজারী থানায় আরাফাজ (২৫)কে প্রধান আসামী করে একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেছেন জাবেদের ভাই খালেদ হোসেন। মামলায় অন্য আসামীরা হলেন এনাম (২৪), পিতা-আবু ইউছুফ, এমরান (২৮), পিতা-শামসু, ওসমান (২২), ফারুক (২২), শওকত হোসেন বেলাল(৩০), পিতা- নূর হোসেন। এদের সবার বাড়ি দৌলতপুর কুম্ভারপাড়া গ্রামে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত