টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

নিষিদ্ধ ‘আনসার আল ইসলাম’

চট্টগ্রাম, ০৫ মার্চ ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: বাংলাদেশে উগ্রপন্থি ইসলামী সংগঠন ‘আনসার আল ইসলামের’ সব ধরনের কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। এ নিয়ে বাংলাদেশে জঙ্গি তৎপরতা ও উগ্র ইসলামি সংগঠন হিসেবে ৭টি সংগঠনকে নিষিদ্ধ করা হল।

রবিবার (০৫ মার্চ) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তার বিভাগের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নিষেধাজ্ঞার কথা জানানো হয়েছে।

আল-কায়েদার বাংলাদেশ শাখা দাবি করে ব্লগার হত্যার দায় স্বীকারকারী ‘আনসার আল ইসলাম’ হচ্ছে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমেরই নতুন নাম। সাম্প্রতিক কয়েকটি গুপ্তহত‌্যার ঘটনায় এই জঙ্গি সংগঠনটিকে দায়ী করা হচ্ছিল।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “আনসার আল ইসলাম নামের জঙ্গি দল/সংগঠন ঘোষিত কার্যক্রম দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা পরিপন্থি।… সংগঠনটির কার্যক্রম জন নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে বিবেচিত হওয়ায় বাংলাদেশে এর কার্যক্রম নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হল।”

প্রথমবারের মতো ২০১৩ সাল থেকে আনসার আল ইসলাম সংগঠনটি ব্লগার হত্যায় নামে। ওই বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পল্লবীতে ব্লগার রাজীব হায়দারকে হত্যার মধ্য দিয়ে এ গোষ্ঠীটি প্রথম আলোচনায় আসে। পরে তারা বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ হয়ে (স্লিপার সেল) সক্রিয় হয়। এ পর্যন্ত (২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল) ৯ জন ব্লগার, প্রকাশক ও ছাত্র-শিক্ষককে হত্যার দায় স্বীকার করেছে সংগঠনটি।

গত বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর বাড্ডা ও মোহাম্মদপুরে এবং ২৭ ফেব্রুয়ারি উত্তরার দক্ষিণখানে আনসার আল ইসলামের তিনটি আস্তানার সন্ধান পায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এসব আস্তানা থেকে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরকসহ বোমা তৈরির উপাদান, নিজস্ব প্রযুক্তিতে হাতে তৈরি গ্রেনেড উদ্ধার করা হয়। একই সঙ্গে সংগঠনটির বেশ কিছু কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়। যার মাধ্যমে সংগঠনটির নতুন নাম আনসার আল ইসলাম বলে জানা যায়।

এর আগে নিষিদ্ধ হওয়া সংগঠনগুলো হচ্ছে- জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি), জাগ্রত মুসলিম জনতা বাংলাদেশ (জেএমজেবি), হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী বাংলাদেশ (হুজি), শাহাদাৎ-ই আল-হিকমা, হিযবুত তাহরীর ও আনসারুল্লাহ বাংলা টিম।

২০০৫ সালে জেএমবিসহ ৪টি সংগঠনকে নিষিদ্ধ করে সরকার। বোমা হামলা চালিয়ে বিচারক হত্যাকাণ্ডের দায়ে জেএমবির শীর্ষনেতা শায়খ আব্দুর রহমান ও সিদ্দিকুল ইসলাম বাংলাভাইকে ফাঁসিতেও ঝোলানো হয়।

২০০৯ সালে হিযবুত তাহরীরকে নিষিদ্ধ করা হয়। আন্তর্জাতিকভাবে সক্রিয় এই সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ করা হয় উগ্রপন্থা প্রচারের জন্য।

সর্বশেষ ২০১৫ সালের ২৫ মে মাসে জঙ্গি সংগঠন হিসেবে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার। যে সংগঠনটির সঙ্গে আল কায়েদার যোগাযোগ রয়েছে বলে গোয়েন্দাদের ধারণা।

মতামত