টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামের মার্কেটে স্মোক ডিটেক্টর স্থাপনের নির্দেশ

চট্টগ্রাম, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: চট্টগ্রাম নগরীর আবাসস্থল, মার্কেটসহ বিভিন্ন জায়গায় ক্রমেই বাড়ছে অগ্নিকাণ্ড। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বাড়ছে। তাই প্রতিটি মার্কেটের প্রতিটি দোকানে নিজ উদ্যোগে ‘স্মোক ডিটেক্টর’ এবং ‘ফায়ার এক্সটিংগুইশার (অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র) স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক সামসুল আরেফিন।

চট্টগ্রামের মার্কেটে অগ্নিনির্বাপক সামগ্রী রাখতে আদেশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

জেলা প্রশাসক জানান, মার্কেটগুলোর অবস্থা ভয়াবহ। বিশেষ করে কাপড়চোপড়ের মার্কেট। অগ্নিদুর্ঘটনায় নির্বাপণ চালানোর সময় সৃষ্ট পানি সংকট দূরীকরণে নগরীতে ওয়াসার ‘হাইড্রেন্ট’ স্থাপনের দাবি উঠেছে। পাশাপাশি স্কুল-কলেজসমূহে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ফায়ার সার্ভিসের প্রাথমিক প্রশিক্ষণ প্রদান, পুকুর ও জলাশায় ভরাট বন্ধ করণসহ বিভিন্ন প্রস্তাব এসেছে।

তিনি আরও জানান, পর্যায়েক্রমে অগ্নিকাণ্ড নিরোধে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ওয়াসার ‘হাইড্রেন্ট’ স্থাপনের বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। সচেতনামূলতা কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হবে। প্রয়োজন হলে অগ্নি প্রতিরোধ ও নির্বাপণ আইন, ২০০৩ আনুসারে অপর্যাপ্ত অগ্নি নির্বাপণ সরঞ্জাম থাকলে কারখানা, গার্মেন্টস ও মার্কেটগুলোতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। এছাড়া আগুন সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সিটি কর্পোরেশনও ব্যবস্থা নিবে। লিফলেট বিতরণ ও মাইকিং করার পাশাপাশি ওয়াসাকে বলা হবে বিভিন্ন এলাকায় পানির রিজার্ভার স্থাপন করার জন্য।

উল্লেখ্য, নগরীর অনেক স্থানেই রাস্তা সরু গলির হওয়ায় পানিবাহী গাড়ি দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছতে পারে না। ফলে অগ্নি নির্বাপণ কর্মকাণ্ড বিঘ্নিত হয়। এছাড়া ভবনগুলোর আশেপাশের জরাজীর্ণ বৈদ্যুতিক তার ও ক্যাবল টিভির তার অগ্নি নির্বাপণ ব্যাহত করে। কৌশলগত স্থানে ওয়াসার হাইড্রেন্ট স্থাপনের সুযোগ নেই। যার ফলে দুর্ঘটনা ঘটলে ফায়ার সার্ভিস দ্রুত ব্যবস্থা নিতে পারে না।

মতামত