টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের মতবিনিময় সভায় সংঘর্ষ, নিহত ১

সেই আলোচিত লিয়াকত এখন বিদ্যুৎ প্রকল্পের পক্ষে!

চট্টগ্রাম, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):  চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে নির্মিত দেশের আলোচিত কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প নিয়ে মতবিনিময় সভায় দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনায়  সংঘর্ষে মারা গেছেন একজন।নিহত মোহাম্মদ আলী (৩৫) বাঁশখালী উপজেলার গণ্ডামারা ইউনিয়নের মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে।  এতে গুরুত্ব আহত মোঃ ইউনুছকে দুইজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এস.এস. পাওয়ার লিমিটেডের কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প নিয়ে নৌবাহিনী ও প্রশাসনের সাথে স্থানীয় জনগণের মত বিনিময় সভার প্রাক্কালে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। বিপুল সংখ্যক পুলিশ নৌবাহিনী ও প্রশাসনের উপস্থিতিতে দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় উপস্থিত জনগণ আতংকিত হয়ে পড়ে।

সূত্রমতে, বেশ কিছুদিন যাবৎ কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকায় স্থানীয় জনগণের পাওনা টাকা নিয়ে চরম উত্তেজনা বিরাজ করে আসছিল। এরই প্রেক্ষিতে স্থানীয় প্রশাসন ও নৌবাহিনীর পক্ষ থেকে স্থানীয় জনগণকে নিয়ে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে প্রকল্প স্থানে। সকাল থেকেই বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা এবং বাঁশখালীর প্রশাসনিক কর্মকর্তারা ওই স্থানে জড়ো হয়। এ সময় লেয়াকত আলী বিপুল সংখ্যক লোক নিয়ে এসে মাঠের চার পাশে শোডাউন করলে নুরুল মোস্তফা সংগ্রাম গ্রুপের লোকজন তা বন্ধ করার জন্য দাবী জানান। এতে দুই গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

লেয়াকত আলী গ্রুপ লোকজন সংগ্রাম গ্রুপ (প্রকল্প বিরোধী) লোকজনকে ধাওয়া করলে এ সময় ইট পাটকেল নিক্ষেপ বেশ কয়েকজন গুরুতর আহত হয়। তার মধ্যে একই পরিবারের ৪ ভাই, তারা হলেন- মোঃ আলী (৩০), মোঃ ইউনুছ (৪৫), জামাল হোসেন (৩৫), আবু সৈয়দ (২৫) তারা সকলই স্থানীয় পশ্চিম বড়ঘোনা এলাকার খলিলুর রহমানের পুত্র।এরমধ্যে মোঃ আলী ও মোঃ ইউনুছকে আশংকাজনক অবস্থায় চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

অপরদিকে এই ঘটনায় আহত হয় মোস্তাফিজুর রহমান (৪৫), কবির আহমদ (৩০)সহ আরো প্রায় ১৫-২০ জন। সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা

বাঁশখালী থানার ওসি মো. আলমগীর ডটকম বলেন, সভার মধ্যে লিয়াকত ও সংগ্রামের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পাঁচজন আহত হয়। আহত পাঁচজনকে বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এছাড়াও কয়েকজন জখম হন বলে স্থানীয়রা জানায়।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আলী ও তার ভাই জামালকে বিকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

চমেক পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক জহিরুল ইসলাম বলেন, “রাত ৯টার দিকে মোহাম্মদ আলী মারা যান। তার মাথায় গুরুতর জখম ছিল।”

আলীর ভাই জামাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানাগেছে, বিএনপি নেতা, গন্ডামারা সাবেক চেয়ারম্যান ও এস আলম কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প বিরোধী আলোচিত নেতা মোহাম্মদ লেয়াকত আলী সম্প্রতি তার কিছু লোকজন নিয়ে বিদ্যুৎ প্রকল্পের পক্ষে এস আলম গ্রুপের সাথে হাত মিলিয়েছে। এনিয়ে ফের গন্ডামারা জনগণ দুই গ্রুপের বিভক্ত হয়ে পড়েছে। সমাবেশ চলাকালে গণ্ডামারা এলাকায় লাঠিসোটা এবং বাঁশ নিয়ে উপস্থিত গ্রামবাসী।

 

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত