টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রাম বিস্ফোরণ: দায়ী চুলা থেকে ছড়ানো গ্যাস

চট্টগ্রাম, ২৭ জানুয়ারি ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): চট্টগ্রামে মাদ্রাসার মালিকানাধীন বাড়িতে বিস্ফোরণের কারণ জানিয়েছে পুলিশ। বাহিনীটি বলছে, গ্যাসের চুলা খোলা রাখায় ঘরে জমে থাকা গ্যাসে আগুন লেগে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

শুক্রবার ভোরে চট্টগ্রাম মহানগরীর বাকলিয়া থানার দেওয়ানবাজার এলাকায় আরাবিয়া খাইরিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার মালিকানাধীন একটি ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। নিরাপদ হাউজিং সোসাইটির ছয় তলা বাতির তৃতীয় তলায় ওই বিস্ফোরণে ঘরের আসবাবপত্র, জানালার কাচ ভেঙে চুরমার হয়ে যায়। উড়ে গেছে ভবনের একটি দেয়াল। কাচ আর দেয়ালের টুকরা রাস্তায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে।

এই ঘটনায় চারজন আহত হয়। এদের মধ্যে ৭০ বছর বয়সী ছমুদা খাতুন, তার নাতনি ইফতি এবং নাতি আরিফও আহত হয়। তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এবং পুলিশের দুটি দল ঘটনাস্থলে যায়। বিস্ফোরণের কারণ জানতে অনুসন্ধানে নামে পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলও।

বিকালে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মোস্তাইন হোসাইন সাংবাদিকদেরকে বলেন, বাড়িটিতে তল্লাশি করে তারা বিস্ফোরকের আলামত পাননি। তিনি বলেন, ‘আমরা নিশ্চিত ঘরের ভেতর জমে থাকা গ্যাসের কারণে বিস্ফোরণ ঘটেছে।’

কীভাবে আগুন ধরলো-জানতে চাইলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, তারা জানতে পেরেছেন গ্যাসের চুলার চাবি খোলা থাকায় ঘরে গ্যাস জমে যায়। চুলা জ্বালাতে ম্যাচের কাঠি ধরানোর সঙ্গে সঙ্গে আগুন ধরে যায়।

আহত পরিবারটির সঙ্গে মাদ্রাসার কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আরিফুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, যে পরিবারটি আহত হয়েছে তারা ২০০৮ সালে ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছিল। গৃহকর্তা মোতালের প্রবাসে থাকেন। তবে সম্প্রতি তিনি দেশে এসে স্ত্রীকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে ছিলেন। বাড়িতে তার মা ও সন্তানরা ছিলেন।

চুলা থেকে ছড়ানো গ্যাসে রাজধানী ঢাকাতেও একাধিক বাড়িতে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় বেশ কিছু প্রাণহানিও হয়েছে। গত বছর ২৪ জুলাই উত্তরার আলাউদ্দিন টাওয়ারে বিস্ফোরণে লিফট ছিড়ে পড়ার ঘটনায় নয় জনেরও বেশি প্রাণহানি হয়েছে।

একই বছর ১৮ মার্চ বনানীর ২৩ নম্বর সড়কের ৯ নম্বর বাড়িতে আগুনের ঘটনাও গ্যাস লিকেজকে দায়ী করা হয়েছিল।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত