টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ভক্ত-অনুরক্তের মেলা বসছে মাইজভান্ডারী’র হাটে

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

চট্টগ্রাম, ২২ জানুয়ারি ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: ‘কেন ছিনলী নারে ম-ন, ওরে ছিনলী নারে ম-ন, গাউসুল আজম মাইজভান্ডারী মাওলানা কেমন’। ‘দেখে যারে মাইজভান্ডারে হইতাছে নুরের খেলা, নূরে মাওলা বসাইয়াছে প্রেমের মেলা।’ মাইজভান্ডারীর শানে এমন সব গজল আর গানের তালে তালে লাখো ভক্ত ছুঁটে আসছেন ফটিকছড়ির মাইজভান্ডার গ্রামে।

বাধ্যযন্ত্রের তালে তালে ভান্ডারীর প্রেমেমগ্ন ভক্ত-অনুরক্তরা। মাইজভান্ডারী আধ্যাত্ম শরাফতের প্রবর্তক হযরত গাউসুল আজম মাওলানা শাহসুফী সৈয়দ আহমদ উল্লাহ (ক.) মাইজভান্ডারীর ১১১ তম ওরশ শরীফ কাল সোমবার মহাসমারোহে উপজেলার মাইজভান্ডারে অনুষ্ঠিত হবে। ওরশকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন ভক্ত-অনুরক্তরা। মাইজভান্ডার দরবার শরীফ এলাকা ইতিমধ্যে লোকে লোকারণ্য হয়ে উঠেছে।

আজ থেকে বিভিন্ন বাদ্যবাজনার শব্দে উৎসবমুখর হয়ে উঠেছে পুরো মাইজভান্ডার এলাকা। আহমদ উল্লাহ (ক.) মাইজভান্ডারী এ প্রধান ওরশকে কেন্দ্র করে দরবারের প্রতিটি মঞ্জিল আলাদা আলাদা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। শান্তি-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ রাখতে প্রশাসন ইতোমধ্যে প্রশাসনিক সমন্বয়সভা করে সকল প্রকার প্রস্তুতি গ্রহন করেছে। নির্বিঘ্নে  ওরশ পালন করতে পুরো মাইজভান্ডার গ্রাম নিরাপত্তার চাঁদরে ডেকে রেখেছে উপজেলা প্রশাসন।

ওরশ উপলক্ষে গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিল, হক মঞ্জিল, রহমানীয়া মঞ্জিল, মঈনীয় মঞ্জিল, দিনব্যাপি মহাসমারোহে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করবে। আহমদ উল­াহ (ক.) মাইজভান্ডারীর এর রওজা শরীফে গোসল, গিলাফ ছড়ানো, মিলাদ মাহফিল, কোরআন খতম, জিকির আজকার, মাইজভান্ডারের বিশেষ আকর্ষণ কাওয়ালী, মাইজভান্ডারী মরমী সঙ্গীতসহ নানা কর্মসূচি পালন করবে মঞ্জিলগুলো।

প্রতি বছর এ দিনটি গুরুত্বের সাথে পালিত হয়ে থাকে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিভিন্ন গাড়িযোগে পায়ে হেটে ভক্ত অনুরক্তরা দরবার আসেন। দিনব্যাপি বিভিন্ন অনুষ্টানাদি ছাড়াও রাত গভীরে আল্লাহু আল্লাহু রবে জিকির আজকারে কম্পিত হয় পুরো এলাকা।

গাউছিয়া রহমান মঞ্জিলের সাজ্জাদানশীন শাহসুফি সৈয়দ মুজিবুল বশর মাইজভান্ডারী বলেন, ওরশ শরীফ সমাজের সর্বস্তরের জনগনের অংশগ্রহনের ব্যাপকতা হযরত শাহ আহমদ উল্লাহ (কঃ) এর আধ্যাত্বিক মাহাত্ব ও তার ত্বরিকার সার্বজনীনতা ও ক্রমপ্রসারমানতারই এক অনুপম স্বাক্ষর। আধ্যত্মিক এ মহান পুরুষের সান্নিধ্য লাভ করে মাইজভান্ডারী তরিকার ব্যাপক প্রচার করে আমাদেরকে তাঁর অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে। তবেই মাইজভান্ডারের দীক্ষা আমাদের জীবনকে সুন্দর করবে।’

দিনব্যাপী অনুষ্ঠান শেষে রাতে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ মিলনমেলার। মোনাজাত পরিচালনা করবেন গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিলের সাজ্জাদানশীন সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভান্ডারী ও সৈয়দ ডা. দিদারুল হক মাইজভান্ডারী।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত