টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বিশ্বজুড়ে ট্রাম্প বিরোধী মিছিল, ওয়াশিংটনে জনসমুদ্র

চট্টগ্রাম, ২১ জানুয়ারি ২০১৭ (সিটিজি টাইমস): প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের যুগে নারীদের অধিকারসহ অন্যান্য নাগরিক অধিকার ঝুঁকির সম্মুখিন বলে শঙ্কিত অসংখ্য মানুষ। তাই শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই নয়, সারা বিশ্বেই ট্রাম্পকে নিয়ে ভীতি রয়েছে। সেই ভীতি যে কতটা প্রবল তার নজির রাখলো বিশ্ববাসী।

শনিবার অধিকার বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে মূলত ট্রাম্প বিরোধী এক বৈশ্বিক গণজোয়ার দেখা যায়। বিশেষ করে ওয়াশিংটনের স্থানীয় সময় শনিবার সকাল থেকে প্রায় সোয়া দুই লাখের মতো নারীরা যোগ দেয় ‘ওয়াশিংটনে নারীদের মিছিলে’।

নারীদের প্রতি অবমাননাকর ও হেনস্থার নানা ঘটনায় অভিযুক্ত ট্রাম্পের প্রতি অনাস্থা জানাতেই নারীদের এই বিশাল জনসমুদ্র।

প্রতিবাদ জানাতে শনিবার সকাল থেকেই ন্যাশনাল মলের দিকে জড়ো হতে থাকে বিক্ষোভকারীরা। যেখান থেকে পরে হোয়াইট হাউজ অভিমুখে মিছিল করার কথা রয়েছে তাদের। আয়োজকেরা প্রথমে ২ লাখের মতো নারীর উপস্থিতি আশা করলেও এখন তা সোয়া দুই লাখে পৌঁছে যাবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। যা প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানের গণজমায়েতকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে।

কেটি পেরি, স্কারলেট জনসন, এ্যামি স্কুমার, আগলি বেটি তারকা আমেরিকা ফেরেরা, প্যাট্রিসিয়া আরকেট এবং মাইকেল মুরের মতো তারকারা এই ট্রাম্প বিরোধীতায় শামিল হওয়ার কথা রয়েছে।

ওয়াশিংটন মার্চের আয়োজকরা এক বিবৃতিতে জানায়, গত নির্বাচনকালীন বক্তব্যগুলো আমাদের অনেকের কাছেই অপমানকর, ভীতকর এবং হুমকি স্বরূপ মনে হয়েছে। এই মিছিল শুধু নতুন সরকারের প্রথম কার্যদিবস শেষেই নয়, গোটা বিশ্বের প্রতি এক কঠোর বার্তা যে নারীর অধিকার মানবাধিকার। এই বিক্ষোভে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মতো সংস্থাসহ সকল ধরনের মানুষের সমর্থন তারা পেয়েছে।

তবে ট্রাম্পের শপথ নেওয়ার দিনেই নজিরবিহীন চরম বিক্ষোভে যে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে তা যেনো আবার না ঘটে সে ব্যাপারে শক্ত অবস্থানে রয়েছে কর্তৃপক্ষ। সেইদিন মরিচের গুড়া ছিটিয়ে পুলিশ উন্মত্ত জনতাকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়, আটক করে ২০০ জনেরও বেশি জনকে। এছাড়াও ছয়জন পুলিশ অফিসার আহত হয়।

তবে শুধু এই মিছিলই নয় যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য শহরসহ বিশ্বের অনেক জায়গাতেই এমন প্রায় ৬ শতাধিক ট্রাম্পবিরোধী মিছিল অনুষ্ঠিত হবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। এছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক থেকে সিয়াটলে আরও ৩০০টি শহরে এই বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হবে।

নির্বাচনী প্রচারণাকালে নারীদের স্পর্শ করা সংক্রান্ত ট্রাম্পের একটি বিতর্কিত মন্তব্য ছড়িয়ে পড়েছিলো, ট্রাম্পের সেই মন্তব্যের প্রতিবাদে নারীরা বিড়ালের মাথার মতো গোলাপি রঙ্গের একটি টুপি ‘পুসি হ্যাট’ ব্যবহার করবে। যা ব্যাপকভাবে সাড়া ফেলেছে। বিপুল সংখ্যক এই ধরনের হ্যাট নারীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

ট্রাম্প-বিরোধী মিছিল ইতিমধ্যে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং এশিয়ার বেশ কয়েকটি শহরে যেমন ব্যাংককে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সিডনি ও মেলবোর্নে কয়েক হাজার নারী ও পুররুষ এক র‌্যালিতে অংশ নেয়। এছাড়াও যুক্তরাজ্য জুড়েও এমন বিক্ষোভ হয়েছে।

সিডনি মিছিলের সহ-আয়োজক মিনডি ফ্রেইব্যান্ড বলেন, ঘৃণা, বিদ্বেষী বক্তব্য, গোড়ামি, বৈষম্য, কুসংস্কারাচ্ছন্ন নীতি- এগুলো আমেরিকান সমস্যা নয়, এগুলো বৈশ্বিক সমস্যা।

মতামত