টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রামগড় স্থল বন্দরের কাজ এই বছরের শেষে

করিম শাহ
রামগড় (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ০২ জানুয়ারি ২০১৭ (সিটিজি টাইমস):: চলতি বছরের শেষ দিকে শত কোটি টাকা ব্যায়ে খাগড়াছড়ির সীমান্তবর্তী রামগড়ে স্থলবন্দর নির্মান করবে বিশ্ব ব্যাংক। আর পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী বন্দর এলাকার ফেনী নদীতে মৈত্রী সেতু ১ নির্মান করবে ভারত। আজ সকালে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে রামগড় স্থলবন্দর উন্নয়ন বিষয়ে গণপরামর্শ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন বাংলাদেশ স্থলবন্দর কৃর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্তী।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য নুরুল আলম চৌধুরী, বিশ^ ব্যাংক বিশেষজ্ঞ নুরুল ইসলাম, স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী মো. হাসান আলী, রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া, জেলা পরিষদ দসদ্য মংশেপ্রু চৌধুরী অপু, চেম্বার্স অব কমার্সের সভাপতি সুদর্শন দত্তসহ সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য রাখেন।

তপন কুমার চক্রবর্তী আরো জানান, বন্দর অবকাঠামো ও সেতু নির্মাণে বন্দর এলাকার মহামুনি থেকে ১০ একর জমি অধিগ্রণের প্রস্তাব ইতিমধ্যে প্রকল্প পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে মৈত্রী সেতু ১ নির্মাণ বিষয়ে সর্বশেষ গত ৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশ-ভারত উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দলের পর্যবেক্ষণ শেষে রামগড় পৌরসভায় বৈঠকের তথ্য অনুযায়ী আগামী ২০১৯ সালের মধ্যে বন্দর সেতু নির্মান কাজ শেষ করার লক্ষমাত্রা নিয়ে চলতি মাস থেকে ভারতীয় অর্থায়নে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে মূল সেতু এবং সংযোগ সড়কসহ ৪১২ মিটার দৈর্ঘ্য ও ১৪.৮ মিটার প্রস্তের সেতু নির্মানের কথা রয়েছে । এ লক্ষে গত ১৩ ডিসেম্বর বন্দর এলাকার বাংলাদেশ অংশে জমি ও সীমানা নির্ধারণের কাজ হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৬ জুন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফরে ভারত-বাংলাদেশের দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী রামগড় স্থলবন্দর চালুর লক্ষ্যে ফেনী নদীর উপর রামগড়-সাবরুম মৈত্রী সেতু-১ এর ভিত্তি প্রস্তর আনুষ্ঠানিক ভাবে শুভ উদ্ভোধন করেন।

মতামত