টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে প্রকল্পের টাকা আত্মসাত; অভিযোগকারীর উপর হামলা

তদন্তে দুর্নীতির প্রমান পেয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

চট্টগ্রাম, ২৭ ডিসেম্বর, সিটিজি টাইমস::ফটিকছড়ির দাঁতমারা ইউনিয়নে ত্রাণ ও দূর্যোগ মন্ত্রনালয়ের (টিআর) বিশেষ বরাদ্ধের ৪৬ টি প্রকল্পের কাজ না করেই টাকা আত্মসাৎ করার দুদকে অভিযোগকারী স্থানীয় যুবলীগ নেতা শহিদুল আলম নাহিদের (৪০) উপর হামলা চালিয়েছে দুর্বত্তরা।

আজ (মঙ্গলবার) সন্ধ্যায় দাঁতমারায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ খোরশেদুল আলম প্রকল্প আত্মসাতের অভিযোগের তদন্ত করে আজ ফেরার পর পর এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় আওয়ামীলীগ নেতা মুজিবুল হক মজুমদারের ছেলে জুয়েল (২৭) ও ইউপি সদস্য সুব্রত কুমার দে (৩৫)সহ আরো বেশ কয়েকজন আহত হওয়া খবর পাওয়া গেছে। তাদেরকে স্থানীয় ক্লিনিকে ও রামগড় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আহত শহিদুল আলম নাহিদ বলেন, ‘আমাদের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় দাঁতমারা ইউপি চেয়ারম্যান জানে আলমের নির্দেশে তার লোকজন আমাদের উপর এ হামলা চালিয়েছে।’

এ দিকে এ ঘটনার পর পর দাঁতমারা ইউপি কার্যালয়ে একদল দুর্বৃত্ত এসে হামলা চালিয়েছে বলে জানা যায়।

চেয়ারম্যান জানে আলম বলেন, ‘আমাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে পরিষদে হামলা চালানো হয়েছে। এ হামলায় অন্তত ছয় জন আহত হয়েছেন।’

ঘটনার পর থেকে এলাকায় তমতমে অবস্থা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থল ভূজপুর থানা ও দাঁতমারা তদন্ত কেন্দ্রর পুলিশ অবস্থান করছেন।

ভূজপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল লতিফ বলেন, ‘দাঁতমারা এলাকায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়েছি। খোজ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় ফটিকছড়ি উপজেলা পরিষদে বাদী-বিবাদীর শুনানী হয়। পরে, উপ-পরিচালক খোরশেদুল আলম সরেজমিনে দাঁতমারা ইউ.পি’র বিভিন্ন প্রকল্প তদন্তে যান। এর পূর্বে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘প্রকল্পগুলোতে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। ইতোমধ্যে ৫ টি প্রকল্প ভুঁয়া প্রমাণিত হয়েছে। এই ভুঁয়া ৫ প্রকল্পের টাকা সরকারী কোষাগারে ফেরত দিয়েছে। যে পরিমাণ কাজ হয়েছে তা নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে এবং অভিযোগ হওয়ার পরে। যেহেতু নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পের কাজ শুরুই হয়নি। সেহেতু নিশ্চিত এখানে অন্যধরনের আগ্রহ এবং উদ্দেশ্যও ছিলো।’

উলে­খ্য, ফটিকছড়ির দাঁতমারা ইউপি চেয়ারম্যান জানে আলম ও ইউনিয়ন পরিষদ সচিব এমরানের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা তারিকুল ইসলামের যোগসাজসে ভূয়া মাস্টার রুল তৈরি করে ৪৬ (টিআর) প্রকল্পের টাকা উত্তোলন করা হয় জানিয়ে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে অভিযোগ দিয়েছে দুই ইউপি সদস্য। দুদকে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় যুবলীগ নেতা শহিদুল আলম নাহিদ।

প্রকল্পগুলোতে কোনটি ফোরকানিয়া মাদরাসার উন্নয়ন আবার কোনটি রাস্তা, ব্রিজ বা কবরস্থানের উন্নয়ন প্রকল্প নামে উলে­খ করা হয়। প্রকল্পগুলো ২৮ জুন ২০১৬ এর মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে বলে মাস্টার রুল জমা দেওয়া হয়। অথচ, এখনো পর্যন্ত অনেক প্রকল্পের কাজই শুরু হয়নি।

মতামত