টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ডে সরকারী খাস জায়গা দখলের মহোৎসব

নোটিশে সীমাবদ্ধ সড়ক-জনপদ বিভাগ

মোঃ ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ২৩ ডিসেম্বর, সিটিজি টাইমস: কোন রকম আইনের তোয়াক্কা না করে সীতাকুণ্ডে চলছে মহাসড়কের খাস জায়গায় দখলের মহোৎসব। একের পর এক সড়ক-জনপদের জায়গায় দখল করে স্থাপনা গড়ে উঠতে থাকায় বন্ধ হয়ে পড়েছে জন সাধারণ ও পানি চলাচলের পথ। একেক করে সড়কে খাস জায়গা বিভিন্ন ব্যাক্তি প্রতিষ্ঠানের দখলে চলে গেলেও নির্ভিকার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তবে মাসিক মাসোয়ারায় স্থানীয় অফিস ম্যানেজ হয়ে পড়ায় দখলদারদের বাঁধা প্রদান হয় না বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

পানি নিস্কাশন ও জনসাধারনের চলাচলের সুবিধার্থে সড়কের পাশে প্রায় ১৫ ফুট জায়গা খালি রাখে সড়ক-জনপদ বিভাগ। সড়কের এসব খালি জায়গা বেদখল হয়ে দিনে দিনে গড়ে উঠছে স্থাপনা। ্একের পর এক খালি জায়গাগুলো বিভিন্ন ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠান দখল নিয়ে স্থাপনা গড়ে তোলাতে থাকায় বিভিন্ন স্থানে বন্ধ হয়ে পড়ছে পানি ও জনসাধারণের চলাচলের পথ। যার ফলে পানি নিস্কাশনের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরী হয়ে বর্ষায় দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। অথচ চলাচলে পথের জায়গা দেখবালে মাঠ নিয়োজিত রয়েছে সড়ক জনপদের মাঠ কর্মী। কিন্তু সংশ্লিষ্ট লোকজন খাতা কলমে নিয়োজিত থাকলেও সড়কের সমস্যা দেখার প্রয়োজন মনে করে না করায় খালি জায়গা দখলে চলে যাচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। ভোক্তভোগীরা বলেন,‘ ব্যবস্থা গ্রহনের নামে দেনদরবারের মাধ্যমে মাশোয়ারা কাজ সারেন অফিস কর্তারা। যার কারণে নিজেদের খেয়াল খুশি মতে জায়গা দখলে মেতে উঠেছে দখলদাররা।

এদিকে মহাসড়কের খাস জায়গা বেদখল শিল্প-কারখানার সম্মুখে পার্কিং উঠায় ঘটে চলছে নানা রকমের দুর্ঘটনা। গত ১৫ ডিসেম্বর রাস্তার উপর পার্কিং গড়ে তোলার কারণে কেএসআরএম গাড়ির সাথে ধাক্কা লেগে ঘটনাস্থলে মারা যাই এক ট্রাক চালক। একইভাবে রাস্তায় রাস্তা দখল করে পার্কিং গড়ে উঠায় প্রায় ছোট-ঘাট দুর্ঘটনা ঘটে চলছে কুমিরা দক্ষিণ বাইপাস এলাকায়। অথচ শুধু মাত্র প্রতিষ্ঠানকে নোটিশ প্রদান ছাড়া আর কিছু করার ক্ষমতা নেই বলে জানান সড়ক-জনপদ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী কার্যালয়ের কর্মকর্তা নারায়ন চন্দ্র নাথ।

এভাবে নোটিশ প্রদান নামে মাশোয়ারায় খান্তা হয়ে যাই সড়ক-জনপদ বিভাগ। আর নোটিশ প্রদানের মাধ্যমে আইনের ব্যবহারের সীমা রেখায় আবদ্ধ হয়ে যাওয়ায় দখলের পর দখল হতে চলছে সরকারী খাস জায়গা। কোনো প্রকার আইনের প্রয়োগ না থাকায় বেদখলে হয়ে পড়েছে সীতাকুণ্ডে দক্ষিণ অঞ্চলের অধিকাংশ জায়গা। ইতিমধ্যে বাড়বকুণ্ড চারের কান্দি, আনোয়রা গেইট, বাঁশবাড়িয়া চম্পা রোলিং মিল, কুমিরা বাইপাস, বিদ্যূৎ অফিস সংলগ্নসহ বহু এলাকায় জায়গা দখল হতে চললেও নিরব ভ’মিকায় রয়েছে সড়ক-জনপদ কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে সড়ক-জনপদ বিভাগের সীতাকুণ্ডস্থ উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী কার্যালয়ের প্রকৌশলী মো. জিয়া উদ্দিন বলেন,‘ সড়ক-জনপদ বিভাগের অনুমোদন না নিয়ে জোরপূর্বক কোনো প্রতিষ্ঠান জায়গা দখলে নিতে পারবে না। এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেলে দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

মতামত