টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে অবৈধ জাহাজ কাটার বিপুল সরঞ্জামসহ আটক ১

প্রধান প্রতিবেদক
সিটিজি টাইমস ডটকম

চট্টগ্রাম, ০৮  ডিসেম্বর  ২০১৬ (সিটিজি টাইমস): চট্টগ্রাম মহানগরের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত এলাকায় অবৈধভাবে জাহাজ কাটার বিপুল পরিমাণ সরঞ্জামসহ দুলাল মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন এরিয়ার ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করে এসব সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।

পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাইদুল ইসলাম ভ্রাম্যমান আদালতে নেতৃত্বে দেন। অধিদপ্তরের পরিচালক আজাদুর রহমান মল্লিকের নির্দেশে এই অভিযান চালানো হয় বলে জানান পরিদর্শক ফখরুদ্দিন।

আটক সরঞ্জামের মধ্যে রয়েছে, ১৮টি বড় এবং ৮টি মাঝারি আকারের গ্যাস সিলিন্ডার, গ্যাস কাটার, আনুমানিক ২ টনেরও বেশি জাহাজ কাটা স্ক্র্যাপ, জাহাজ কাটায় জড়িত অর্ধশতাধিক শ্রমিকের হাড়ি-পাতিলসহ প্রায় ৫ লাখ টাকারও বেশি যন্ত্রপাতি।

পরিদর্শক ফকরুদ্দিন জানান, নগরীর পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত এলাকার অদুরে গোপন আস্তানা গেড়ে দুলাল মিয়া ও মো. হোসেন নামে দুই ব্যক্তি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে জাহাজের স্ক্র্যাপ কেটে আসছিল। গোপন সূত্রে খবর গত ৬ ডিসেম্বর ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিন পর্যবেক্ষনের সময় তাদের কারন নোটিশ প্রদান করা হয়। যাতে ৭ ডিসেম্বর সশরীওে অধিদপ্তরের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে এ ব্যাপারে কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়। কিন্তু এ নোটিশ অমান্য করে কেউ হাজীর হননি। ফলে আজ ৮ ডিসেম্বর পরিবেশ অধিদপ্তরের ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে জাহাজ কাটার সরঞ্জামসহ দুলাল মিয়াকে আটক করা হয়।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, নোয়াখালী এলাকার বাসিন্দা দুলাল মিয়া ও মো. হোসেন নভেম্বর মাসের শেষের দিকে পতেঙ্গা এলাকায় আস্তানা গেড়ে প্রকাশ্যে সাগর থেকে স্ক্র্যাপ জাহাজ তুলে তা কেটে ট্রাকযোগে ঢাকায় পাচার করা শুরু করে। এতে স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তির ইন্ধনও রয়েছে।

আটক দুলাল মিয়া জানান, বরিশালের খানসন্স লাইনস্ ও ঢাকার গ্রীন প্রপার্টিজ নামের দুটি কোম্পানী চট্টগ্রাম বন্দর থেকে লীজ নিয়ে সাগর থেকে স্ক্র্যাপ জাহাজ তুলে এনে কেটে নিয়ে যাচ্ছে। মালিকপক্ষ তাকে নিয়োগ দেন। এ ব্যাপারে বন্দর কর্তৃপক্ষ স্থানীয় থানার ওসিকে অবহিত করেছেন। কিন্তু স্ক্র্যাপ জাহাজ কাটার কোন অনুমোদন পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে নেয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে পরিবেশ অধিদপ্তরের কাম কি?।

পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন এরিয়ার পরিচালক আজাদুর রহমান মল্লিক এ প্রসঙ্গে বলেন, স্ক্র্যাপ জাহাজ কাটার সাথে পরিবেশ দূষণের বিষয়টি যুক্ত। দুষণ থেকে মুক্ত রাখার জন্য সরকার নগরের বাইরে সীতাকুন্ড এলাকায় জাহাজ কাটা শিল্প গড়ার অনুমোদন দিযেছে। যা পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র দিয়েই অনুমোদন দেয়া হয়। আর দুলাল মিয়া কোনরকম অনুমোদন ছাড়াই নগরের মধ্যে স্ত্র্যাপ জাহাজ কাটছে। যা নগরের পরিবেশকে দুর্বিষহ করে তুলবে। এ ব্যাপারে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

মতামত