টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

হালদা রক্ষায় রাবার ড্যাম ও স্লুইসগেট প্রত্যাহার করা হবে

চট্টগ্রাম, ০৩ ডিসেম্বর  ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::   কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন কেন্দ্র চট্টগ্রামের হালদা নদী রক্ষার নদী সংলগ্ন রাবার ড্যাম ও স্লুইসগেটগুলো প্রত্যাহার করা হবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক। তিনি বলেছেন, আমাদের পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, ব্রক্ষ্মপুত্রের মতো বড় বড় নদী আছে। কিন্তু রুই, কাতলাসহ কার্প জাতীয় মাছের রেণু পাওয়া যায় কেবল হালদায়। অর্থাৎ হালদা একটি বিশেষ নদী। জাতীয় স্বার্থে এই নদী রক্ষা করতে হবে।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট অব আপস্ট্রিম ওয়াটার উইথড্রয়াল টু কনজার্ভ ন্যাচারাল ব্রিডিং হ্যাবিট্যাট অব মেজর কার্পস ইন দ্য রিভার হালদা’ শীর্ষক জাতীয় কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট এ কর্মশালার আয়োজন করে। মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মাকসুদুল হাসান খানের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথি ছিলেন পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মৎস্য প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ।

কর্মশালায় প্রধান আলোচক ছিলেন আন্তর্জাতিক নদী বিশেষজ্ঞ ও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এমিরেটাস ড. আইনুন নিশাত।

অনুষ্ঠানে পানি সম্পদমন্ত্রী ব্যারিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, সারা বাংলাদেশে মিঠা পানির মাছ প্রজননের ৭০ শতাংশের বেশি প্রাকৃতিকভাবে হয়। এর অধিকাংশই আবার হালদা নদী ভিত্তিক। তাই হালদার গুরুত্ব জাতীয়ভাবে দেখতে হবে। তিনিও পানির প্রয়োজন কম হয় এমন ফসল উৎপাদনের ওপর হালদা তীরবর্তী কৃষকদের গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান জানান।

মূল আলোচনায় ড. আইনুন নিশাত বলেন, নদী রক্ষায় আন্ত:মন্ত্রণালয় সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব বদলি হয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ে গেলে দেখা যাবে, তিনি তখন রাবার ড্যামের পক্ষে কথা বলবেন। এটাই বাস্তবতা। এই দৃষ্টিভঙ্গিও পরিবর্তন প্রয়োজন। হালদা রক্ষায় তিনি কৃষির পরিবর্তে মাছের ওপর বেশি গুরুত্ব দেয়াসহ ২৯টি পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, মাছের জন্য যে পরিমাণ পানি দরকার তা দিতে হবে। কৃষির ক্ষেত্রে যে সব শস্য উৎপাদনে পানির চাহিদা কম সেদিকে মনোযোগ দিতে হবে। বোরো ধানের পরিবর্তে ভুট্টা, গম বা অন্য ফসল উৎপাদন করা যেতে পারে।

এছাড়া হালদার স্বাভাবিকতা রক্ষার জন্য আইনুন নিশাত স্লুইস গেটের নকশা পরিবর্তন, রাবার ড্যামের উপযোগীতা আরও গভীরভাবে যাচাই করা, বালু সংগ্রহ বন্ধ করা এবং তামাক চাষ নিরুৎসাহিত করার পরামর্শ দেন।

গবেষণা প্রতিবেদনে হালদা নদীর পরিবেশ ও প্রতিবেশ রক্ষায় বেশ কিছু সুপারিশ করা হয়। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- নদী সংলগ্ন পুরনো খাল পুন:খনন করা, রাবার ড্যাম ও স্লুইসগেটগুলোর উপযোগীতা পুনরায় যাচাই করা, নদীর পানি ব্যবহার কওে বোরো ধান চাষ বন্ধ করা, নদীর পানি সেচ প্রকল্পে ব্যবহার না করা ইত্যাদি।

মতামত